Dreamy Media BD

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এক ক্লিকেই সকল তথ্য

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এর সকল তথ্য

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের অন্যতম একটি স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়। এটি বাংলাদেশের একটি অন্যতম উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং পুরো দেশের মধ্যে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৩৩ তম। ২০১১ সালে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাস বরিশাল শহরে স্থাপন করা হয়। এই শিক্ষাঙ্গনের আয়তন প্রায় ৫০ একর। 

প্রতিষ্ঠানটি ২০১১ সালে যখন প্রতিষ্ঠা করা হয় তখন মাত্র ছয়টি বিষয় স্নাতক শিক্ষার পাঠদান করা হতো। কিন্তু বর্তমানে স্নাতক এর বিষয়গুলো ২৫ টি বিভাগে এবং স্নাতকোত্তর এর বিষয়গুলো ১৮ টি বিভাগে পরিচালিত হয়ে থাকে। প্রতিবছর এই বিষয়গুলোর জন্য ১৪৯০ জন শিক্ষার্থী নতুন করে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায়। 

২০১১ সালে অস্থায়ী ক্যাম্পাসের মাধ্যমে শিক্ষা যাত্রা শুরু হল বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস রয়েছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়টি বরিশাল সদর উপজেলার কীর্তনখোলা নদীর সেতু সংলগ্ন ঢাকা পটুয়াখালী মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে তুলে ধরবো।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

স্বাধীনতা পরবর্তী সময় থেকেও বরিশালে কোন স্থায়ী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ছিল না। ১৯৭৩ সালে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষনা করেন বরিশাল জেলায় তার একটি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির ইচ্ছা রয়েছে। তবে বিভিন্ন রাজনৈতিক সমস্যা এবং বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ড সংগঠিত হওয়ার পর এই বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর প্রচেষ্টা স্থগিত ছিল।

পরবর্তীতে ২০০০ সালের দিকে পটুয়াখালির কৃষি কলেজকে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়। এটি ছিল বরিশাল শহরে প্রথম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। ২০০৮ সালের ২৯ শে নভেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি কর্তৃক বরিশাল শহরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রস্তাবটি পাশ করা হয়। ২০১১ সালের ২২ শে ফেব্রুয়ারি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১২ সালে ২৪ শে ফেব্রুয়ারি তৎকালীন শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষাগত কার্যক্রম চালুর ঘোষণা করেন। 

প্রতিষ্ঠা সময় থেকে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান। এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলেন হারুনুর রশিদ। ২০১৩ সালেই বিশ্ববিদ্যালয়টির মূল ক্যাম্পাসের আয়তন ছিল প্রায় ৫৩ একর ভূমি নিয়ে। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যেকটি শিক্ষাবিভাগের কার্যক্রম তার মূল ক্যাম্পাসেই অনুষ্ঠিত হয়।বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাস বরিশাল শহরেই অবস্থিত। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি বরিশাল শহরের কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব দিকে অবস্থিত। তবে সহজ করে বলতে গেলে এই বিশ্ববিদ্যালয়টির অবস্থান হলো বরিশাল সদর উপজেলার কর্ণ পার্টিতে ঢাকা পটুয়াখালী মহাসড়কে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়তন

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়টির মোট আয়তন হল ৫০ থেকে ৫৩ একরের কাছাকাছি। এই জমিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাস রয়েছে। এই ক্যাম্পাসে তাদের যাবতীয় বিষয়ের শিক্ষা কার্যক্রম সম্পাদিত হয়। এই ৫৩ একর জমিতে রয়েছে একাধিক প্রশাসনিক ভবন, বিভিন্ন একাডেমিক ভবন এবং অন্যান্য বিল্ডিংসমূহ। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়তন আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্ষিপ্ত নাম

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কে বাংলায় ছোট করে ববি নামে ডাকা হয়। University of barisal কে সংক্ষেপে BU নামে ডাকা হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস পরিচিতি

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য ছয় তলা বিশিষ্ট একটি অত্যাধুনিক ভবন রয়েছে। এই ভবনের বিভিন্ন জায়গাকে বিভিন্ন নামে আখ্যায়িত করা হয়। যেমন: একাডেমিক ভবন ১, প্রশাসনিক ভবন ২, একাডেমিক ভবন ২, প্রশাসনিক ভবন ১ ইত্যাদি। এই ভবনটি প্রতিষ্ঠা করার সময় এর আকার ছিল “৪” এর মত। কিন্তু বর্তমানে এই আকার পরিবর্তিত হয়ে ইংরেজি “C” বর্ণের মতো দেখায়। 

তবে বর্তমানে এই ভবন আবার মেরামত করা হবে বলে জানা যায়। মূলত এই ভবনের মাধ্যমে এই বিশ্ববিদ্যালয় টি যাবতীয় প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এই ভবনে বিভিন্ন কার্যালয় বা অনুষদের মাধ্যমে বিভিন্ন কাজ সম্পাদন করা হয়। অনুষদ গুলোর নাম হল:

  1. সোনালী ব্যাংক, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।
  2. বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পোস্ট অফিস রয়েছে।
  3. নিজস্ব রেজিস্টরের কার্যালয়।
  4. প্রক্টর অফিস।
  5. বিভিন্ন অনুষদের জন্য ডিন অফিস রয়েছে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে নিজস্ব বিশাল গ্রন্থাগার। এই গ্রন্থাগারের পাশে রয়েছে মেডিকেল সেন্টার। এই মেডিকেল সেন্টারের মাধ্যমে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিনা খরচে অথবা স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকেন। এছাড়া সেখানে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের অফিস রয়েছে। ছাত্র শিক্ষক একত্রিত করার জন্য টিএসসি ভবন রয়েছে। 

বিশ্ববিদ্যালয় টি শিক্ষকদের অবস্থানের জন্য আবাসিক ভবন রয়েছে এবং শিক্ষার্থীদের জন্য নিজস্ব হল রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় টি নিজস্ব মন্দির, মুক্ত মঞ্চ এবং পুলিশ ক্যাম্প প্রয়োজন। তাই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিট পরিচিতি

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমানে ছয়টি অনুষদ চালু রয়েছে। এই ছয়টি অনুষদের অধীনে ২৪ টি বিভাগ রয়েছে। বিভাগ গুলোর নাম হল:

  • জীববিজ্ঞান ও কৃষি অনুষদ,
  • বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদ,
  • সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ,
  • আইন অনুষদ,
  • ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ,
  • কলা ও মানবিক অনুষদ।

এই বিভাগগুলোকে মোটামুটি ৪ টি ইউনিটে ভাগ করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়। “এ ইউনিটে” যাদের ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয় তাদের বিষয়গুলো হলো বিজ্ঞান, প্রকৌশল এবং জীববিজ্ঞান। “বি ইউনিটে” যাদের ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয় তাদের বিষয়গুলো হলো কলা ও মানবিক অনুষদ। এবং যারা ব্যবসা শিক্ষা বিভাগে পড়াশোনা করতে চান তাদের জন্য “সি ইউনিটের” পরীক্ষা নেওয়া হয়। আর পরবর্তীতে যারা শাখা পরিবর্তন করতে ইচ্ছুক থাকে তাদের জন্য “ডি ইউনিটে” পরীক্ষা নেওয়া হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ ও বিভাগসমূহ আসন সংখ্যা

বিভাগ                      বিভিন্ন গ্রুপের জন্য নির্ধারিত আসন সংখ্যা
বিজ্ঞানবাণিজ্যমানবিকআসন সংখ্যা
গণিত৭৫৭৫
রসায়ন৮০৮০
পদার্থবিজ্ঞান৮০৮০
ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা৬০৬০
কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং৫০৫০
উদ্ভিদবিজ্ঞান৮০৮০
বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি২০২০
এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স৮০৮০
ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট২০২০

“খ ইউনিটের” বিভাগসমূহ এবং আসন সংখ্যা হল:

 

বিভাগ                        বিভিন্ন গ্রুপের জন্য নির্ধারিত আসন সংখ্যা
বিজ্ঞানবাণিজ্যমানবিকআসন সংখ্যা
বাংলা৫০৫০
ইংরেজি৪৫৪৫
দর্শন১৫১৫
অর্থনীতি৩৫৩৫
গণসংযোগ ও সামাজিকতা১৫১৫
সমাজবিজ্ঞান৫০৫০
লোক প্রশাসন৫০৫০
পলিটিক্যাল সায়েন্স৫০৫০
আইন৪০৪০

” গ ইউনিটের” বিভাগসমূহ এবং আসন সংখ্যা হল:

বিভাগ                       বিভিন্ন গ্রুপের জন্য নির্ধারিত আসন সংখ্যা
বিজ্ঞানবাণিজ্যমানবিকআসন সংখ্যা
মার্কেটিং৬০৬০
ম্যানেজমেন্ট৬০৬০
একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম৬০৬০
ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং৬০৬০

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক তথ্য

৩৬৫ দিনের মধ্যে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শুক্র এবং শনিবার বাদে সাপ্তাহিক ছুটি হিসাব করলে বছরে মোট ছুটির পরিমাণ দাঁড়ায় ৫০ দিনেরও বেশি। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণত গ্রীষ্মের ছুটি অনেক দিনের হয়। বেশ কিছু বছর ধরেই দেখা গিয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে গ্রীষ্মের ছুটি ১৬ দিনের ও বেশি।  ঈদুল আযহা ও ঈদুল ফিতর এবং অন্যান্য সরকারি ছুটি মিলিয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় মোট ছুটি থাকে ১০০ দিনেরও বেশি।

প্রত্যেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েরই উপাচার্য এর জন্য কিছু ছুটি বরাদ্দ থাকে। এই ছুটির পরিমাণ বছরে ৫ থেকে ৬ দিনের মতো হয়ে থাকে। সব মিলিয়ে বছরের প্রায় অনেকদিন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকে। একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকার কারণে সেমিস্টার এর পরীক্ষা অনেকটা পিছিয়ে পড়ে। আবার সেমিস্টারের পরীক্ষা যখন কোন একটা বড় ছুটির মধ্যে পড়ে তখন সেই পরীক্ষা প্রায় এক থেকে দুই মাস পিছিয়ে যায়। যা ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য মারাত্মক ক্ষতি।

বিশ্ববিদ্যালয় ঈদুল ফিতর ঈদুল আযহা এবং অন্যান্য ধর্মীয় এবং সংস্কৃতি অনুষ্ঠান মিলিয়ে প্রায় ১৫ দিনের মতো বন্ধ থাকে। আবার বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব কিছু ছুটি রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: ভর্তি পরীক্ষা, সমাবর্তন, শিক্ষা ভ্রমণ, টিচার্স ডে, বিভিন্ন রাজনৈতিক কারণে আন্দোলন, ছাত্র-ছাত্রীদের নিজস্ব আন্দোলন ইত্যাদি । এইসব কারণে কোন সরকারি বন্ধ না থাকলেও জরুরী ভিত্তিতে সেদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রম বন্ধ রাখার দরকার হতে পারে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর সংখ্যা

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কে দক্ষিণবঙ্গের বাতিঘর হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়তন খুব বেশি না হলেও বিশ্ববিদ্যালয় এটি স্বমহীমায় গর্বিত। ২০২৩ সালে সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষকের সংখ্যা ১৫১ জন। কর্মকর্তা ৫৫ ও কর্মচারীদের সংখ্যা ১৬৫ জনের মত। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয় টি ছাত্র-ছাত্রীদের পরিমাণ ৯১০০ জন। এবং ২০১৪ এর হিসাব মতে‌ স্নাতক শিক্ষার্থীর সংখ্যা রয়েছে ৩৬৩৭ জন। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ছয়টি অনুষদ রয়েছে। এবং সেখানে প্রায় ২৫ টি আলাদা আলাদা বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আবেদন যোগ্যতা

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হওয়ার জন্য ৪টি ইউনিটে আবেদন করা যায়। যারা শুধুমাত্র এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তারাই এই ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবেন। ” এ ইউনিটে” আবেদন করার জন্য শিক্ষার্থীর এসএসসি এবং এইচএস অথবা সমমানের পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয় সহ ৩.৫০ থাকতে হবে। তবে এসএসসি এবং এইচএসসি দুইটি পরীক্ষার পয়েন্ট মিলিয়ে সাত পয়েন্ট ৭.০০ হলেই শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবেন।

 বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের “বি ইউনিটে” আবেদন করার জন্য শিক্ষার্থীর এসএসসি অথবা এইচএসসি বা সমমানের যে কোন পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয়সহ ৩.৫০ শূন্য থাকতে হবে। তবে এক্ষেত্রে এসএসসি এবং এইচএসসি দুইটি পরীক্ষার চতুর্থ বিষয়ে সহ ৭.৫০ অবশ্যই থাকতে হবে। এক্ষেত্রে এসএসসি পরীক্ষায় বেশি বা এইচএসসি পরীক্ষায় কম এরূপ থাকলেও পুনরূপ সমস্যা হবে না।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সি ইউনিটে আবেদন করার জন্য শিক্ষার্থীর এসএসসি বা এইচএসসি অথবা সমমানের যেকোনো পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয়ে সহ ৮. ০০ থাকতে হবে। তবে এক্ষেত্রে এস এস সি বা এইচএসসি যেকোনো পরীক্ষায় সর্বনিম্ন ৩.৫০ থাকতে হবে। এর নিচে থাকলে কোন শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবেন না। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার জন্য ডিপ্লোমা ও ভোকেশনাল ইত্যাদি মাধ্যমে পড়ে আসা শিক্ষার্থীরও আবেদন করতে পারবেন।

পরীক্ষার ধরন ও ইউনিট ভিত্তিক মানব বন্টন

ভর্তি পরীক্ষায় সাধারণত সব ইউনিটেই ১০০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়ে থাকে। পুরো পরীক্ষাটি mcq এর মাধ্যমে সম্পাদন হয়। এই এম সি কিউ পরীক্ষায় ভুল উত্তরের জন্য ২.৫  করে নাম্বার কেটে নেওয়া। তাই অবশ্যই ভুল উত্তর দেওয়া যাবে না। এবং সঠিক উত্তর জানলে সেটাই পূরণ করতে হবে। আসুন জেনে নেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার ন্যূনতম পাস নম্বর গুলো:

গণিতে ন্যূনতম নাম্বার হলো ৬, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান এবং ভূতত্ত্ব ও খুনি বিদ্যায় ন্যূনতম পাস নাম্বার হলো ৭, সাইন্স এন্ড এনভিরণমেন্টাল সায়েন্সে পাস নম্বর ৭, বায়োমেট্রিক্স অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি এবং পোস্টাল স্টাডিসন এন্ড ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে পাশ করার জন্য নূন্যতম নাম্বার থাকতে হবে সাত। বি ইউনিটের আবেদন করার জন্য নূন্যতম বাংলা ও ইংরেজি বিষয়ে থাকতে হবে ১০ ও ১৪ নাম্বার। তবে সি ইউনিটের আবেদন করার জন্য কোন রূপ যোগ্যতার দরকার হয় না।

তবে আপনাকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেতে হলে ১০০ নম্বরের মধ্যে কমপক্ষে পাস নম্বর ২৫ পেতে হবে। তবে আপনি যদি এই ইউনিটের জন্য পরীক্ষা দেন তবে আপনাকে জীববিজ্ঞান এর উত্তর অবশ্যই দিতে হবে। এবং এইসব পরীক্ষার বাংলা বিষয়ে দশ নম্বর এবং ইংরেজি বিষয়ের দশ নম্বর থাকে। এই বিশ নম্বরের ভিতর আপনাকে অবশ্যই দশ নাম্বার পেতে হবে ভর্তির আবেদন করার জন্য।

পরীক্ষার সময় ও তারিখ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ভর্তি পরীক্ষার তথ্য এবং অন্যান্য খবরাখবর জানতে ভিজিট করুন:

http://bu.ac.bd/

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশপত্র ডাউনলোড

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে ভিজিট করুন এই লিংকে:

http://bu.ac.bd/

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি সার্কুলার

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি সার্কুলার জানতে ভিজিট করুন এই লিংকে:

http://bu.ac.bd/

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পদ্ধতি

বর্তমানে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষাগুলো গুচ্ছ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রায় সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়ে থাকে। গুচ্ছ পরীক্ষায় সাধারণত ১০০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়। এই ১০০ নম্বরের পরীক্ষায় শিক্ষার্থীর এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল মিলিয়ে ২০ নাম্বার প্রদান করা হয়ে থাকে। 

এবং তাকে ৮০ নাম্বার শিক্ষার্থীর পরীক্ষার ফলাফলের উপর নির্ভর করে। যাদের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল ভালো তারা অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবে এটাই স্বাভাবিক। তাই যাদের এসএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ভালো না তাদের ভর্তি পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের মাধ্যমে মার্ক তুলতে হবে। না হলে তারা মেধা তালিকায় পিছিয়ে থাকবে।

আবেদনের খরচ

বর্তমানে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদন ফ্রি নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০০ টাকা।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের তালিকা

 

উপাচার্যের নামদায়িত্ব গ্রহণ
হারুনুর রশিদ খান২০১১
এস এম ইমামুল হক২০১৫
এ কে এম মাহবুব হাসান২০১৯ (ভারপ্রাপ্ত)
সাদেকুল আরেফিনবর্তমান

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকটি একাডেমিক ভবনের মাধ্যমে  শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। ভবন গুলোর নাম হল:

  • একাডেমিক ভবন ২- বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল ভবন।
  • একাডেমিক ভবন ২-বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল ভবন। 

এটি মূল ভবনের উপভবন।

  • প্রশাসনিক ভবন ১।
  • প্রশাসনিক ভবন ২।
  • ছাত্র-শিক্ষক ভবন (টিএসসি)।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় লাইব্রেরী

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে কেন্দ্রীয় গণ গ্রন্থাগার। এই গ্রন্থাগারের নাম হল “শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার”। এই গ্রন্থাগার ভবনের নিচ তলায় শিক্ষার্থীরা বসে তাদের পাঠ্যপুস্তক সহ অন্যান্য বই পড়তে পারে। এবং এই গ্রন্থাগার ভবনেই রয়েছে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের অফিস। এবং এই গ্রন্থাগার ভবনে মেডিকেল সেন্টার অবস্থিত।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং ছাত্রীর উভয়ের জন্য মোট চারটি আবাসিক হল রয়েছে। এই চারটি হলের দুটি ছেলেদের জন্য ব্যবহার করা হয় এবং বাকি দুটি মেয়েদের জন্য ব্যবহার করা হয়।

 

হলের নামপ্রতিষ্ঠিতআসন সংখ্যা
শেরে বাংলা হল ( ছাত্র)২০১১৬১০
বঙ্গবন্ধু হল ( ছাত্র)২০১১৬১০
শেখ হাসিনা হল (ছাত্রী)২০১১৬১০
শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল (ছাত্রী)২০২২৬১০

 

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি খরচ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় বার্ষিক গড় ব্যয় হতে পারে ৩৪ হাজার টাকার মত। তবে এই টাকা একবার এই পরিশোধ না করে ভাগ ভাগ করে পরিশোধ করা সম্ভব। প্রথম বর্ষে ভর্তি হওয়ার সময় খরচ হতে পারে সর্বমোট ১৫ হাজার টাকার মত। পরবর্তীতে পরীক্ষার ফি এবং অন্যান্য বাবদ ফরম পূরণ করার সময় টাকা জমা দিতে হতে পারে। এবং প্রতিবছর নতুন ক্লাসে ভর্তি হওয়ার সময় ২০০০ অথবা ৩০০০ টাকার মতো লাগতে পারে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের নাম হলো গুঠিয়া বায়তুল আমান মসজিদ। প্রায় সাত কোটি টাকা ব্যয়ে মসজিদে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। এই মসজিদের শুধুমাত্র বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নামাজ আদায় করতে পারবে বিষয়টা এমন নয়। জনসাধারণের জন্য মসজিদটি উন্মুক্ত করা হয়েছে।

 ২০২৩ সালের একুশে আগস্ট মসজিদের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং মসজিদের উদ্বোধন করা হয়েছে। এই মসজিদটি ২০ শতাংশ জমির উপর অবস্থিত এবং মসজিদটি পুরোপুরি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। এখানে একসঙ্গে আড়াই হাজার মুসল্লী একসঙ্গে নামাজ আদায় করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। মসজিদটিতে ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেমের ব্যবস্থা রয়েছে এবং মসজিদের ফ্লোরটি সম্পূর্ণ মার্বেল পাথর দ্বারা নির্মাণ করা হয়েছে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট 

http://bu.ac.bd/

যোগাযোগ

কর্ণ কাঠি, বরিশাল-৮২৫৪, বাংলাদেশ।

ফোন নাম্বার:‌ 0431-2177771-77.

ইমেইল:[email protected]

ওয়েবসাইট:http://bu.ac.bd/

সবশেষে

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় খুব বেশি পুরানো না হলেও এর শিক্ষা কার্যক্রম প্রশংসনীয়। তাই যদি কেউ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদন করতে চান তারা নিঃসন্দেহে আবেদন করতে পারেন। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়টি এই শহরের জ্ঞানপিপাসুদের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়। খুব সুন্দর পরিবেশে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়টি তার নিজের স্বমহিমায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। আশা করছি এই আর্টিকেলটি আপনাদের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

 

Reference:http://bu.ac.bd/

https://en.wikipedia.org/wiki/University_of_Barishal

Also Read : ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয় 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents