Dreamy Media BD

জ্যামিতি কাকে বলে ! জ্যামিতি কত প্রকার ও কি কি

জ্যামিতি কাকে বলে

জ্যামিতি কাকে বলে ! জ্যামিতি কত প্রকার ও কি কি

জ্যামিতি হলো গণিতের অন্যতম প্রধান শাখা।  জ্যামিতি ছাড়া গণিত কল্পনাই করা যায় না। আজকের এই আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে জ্যামিতি নিয়ে , এই আর্টিকেলে আমরা জানবো জ্যামিতি কাকে বলে, জ্যামিতির ধারণা ও এর বিভিন্ন শাখা সম্পর্কে।  

জ্যামিতি কাকে বলে

জ্যামিতি হলো গণিতের একটি শাখা যেখানে বস্তুর আকার, আকৃতি এবং পরিমাণ নিয়ে আলোচনা করা হয়।  জ্যামিতিতে, আমরা বিন্দু, রেখা, কোণ, বক্ররেখা, পৃষ্ঠ এবং ঘনবস্তুর মতো জ্যামিতিক বস্তুগুলির সাথে কাজ করি।

জ্যামিতি আমাদের চারপাশের বিশ্বকে বোঝার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। এটি প্রকৌশল, স্থাপত্য, শিল্প, জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

জ্যামিতি শব্দের অর্থ 

জ্যামিতি শব্দটি গ্রিক শব্দ “জিও” (geo) এবং “মেট্রন” (metron) থেকে এসেছে। “জিও” শব্দের অর্থ “ভূমি” এবং “মেট্রন” শব্দের অর্থ “পরিমাপ”। সুতরাং, জ্যামিতি শব্দের অর্থ “ভূমির পরিমাপ”।

জ্যামিতি ইতিহাস 

জ্যামিতির ইতিহাস প্রাচীন মিশর থেকে শুরু হয়। মিশরীয়রা জমি জরিপের জন্য জ্যামিতি ব্যবহার করত। তারা জমিকে বিভিন্ন আকৃতিতে ভাগ করে দিত এবং সেই আকৃতির ক্ষেত্রফল নির্ণয় করত। মিশরীয়রা জ্যামিতির কিছু মৌলিক ধারণা জানত, যেমন কোণ, ত্রিভুজ এবং বৃত্ত।

প্রাচীন ব্যাবিলনীয়রাও জ্যামিতিতে অবদান রেখেছিল। তারা জ্যামিতি ব্যবহার করে জ্যোতির্বিদ্যা এবং জ্যোতিষ শাস্ত্রে কাজ করত।

প্রাচীন গ্রীসে জ্যামিতিতে উল্লেখযোগ্য বিকাশ ঘটে। গ্রিক গণিতবিদ পিথাগোরাস, ইউক্লিড এবং অ্যাপোলোনিয়াস জ্যামিতির বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তত্ত্ব প্রদান করেছিলেন।

জ্যামিতির ইতিহাসের অন্যান্য উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব

  • আর্কিমিডিস (খ্রিস্টপূর্ব ২৮৭-খ্রিস্টপূর্ব ২১২)
  • হিপ্পারকস (খ্রিস্টপূর্ব ২য় শতাব্দী)
  • আল-খাওয়ারিজমি (৭৮০-৮৫০
  • অলিভার হেভিসাইড (১৮৫০-১৯২৫

জ্যামিতির বর্তমান অবস্থা

জ্যামিতি একটি গতিশীল শাঁখা, গণিতবিদরা এখনও জ্যামিতির বিভিন্ন দিক নিয়ে গবেষণা করছেন। জ্যামিতি বিভিন্ন বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

জ্যামিতির কিছু বর্তমান গবেষণার ক্ষেত্র হল:

  • বিশ্লেষণী জ্যামিতি: এটি জ্যামিতিকে বিশ্লেষণাত্মক গণিতের সাথে সংযুক্ত করে।
  • ডিফারেনশিয়াল জ্যামিতি: এটি জ্যামিতিকে ডিফারেনশিয়াল ক্যালকুলাসের সাথে সংযুক্ত করে।
  • রৈখিক জ্যামিতি: এটি জ্যামিতিকে রৈখিক বীজগণিতের সাথে সংযুক্ত করে।
  • টপোলজি: এটি জ্যামিতিকে স্থানিক সম্পর্কের সাথে সংযুক্ত করে।

জ্যামিতি আমাদের চারপাশের বিশ্বকে বোঝার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। 

জ্যামিতি আবিষ্কার করেন কে?

জ্যামিতি আবিষ্কার করেছিলেন কে এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর নেই। কারণ জ্যামিতির উৎপত্তি প্রাচীন মিশরে, এবং তখন থেকেই এটি বিভিন্ন সংস্কৃতিতে বিকাশ লাভ করেছে।

এই বিবেচনায় বলা যায়, জ্যামিতির জনক একজন নয়, বরং বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন গণিতবিদ। তবে, জ্যামিতির একটি স্বতঃসিদ্ধ ধারা প্রদানের জন্য ইউক্লিডকে জ্যামিতির জনক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ইউক্লিডের “দ্যা এলিমেন্টস অব জিওমেট্রি” গ্রন্থটি জ্যামিতির একটি মৌলিক পাঠ্যপুস্তক হিসেবে বিবেচিত হয়।

জ্যামিতি কত প্রকার ও কি কি

জ্যামিতির নির্দিষ্ট কোনো প্রকারভেদ নাই। জ্যামিতির মুলত ২ প্রকার: 

  • ১. ব্যবহারিক জ্যামিতি
  • ২. তাত্ত্বিক জ্যামিতি 

এছাড়াও এখানে তল জ্যামিতি ও ঘন জ্যামিতি নিয়ে আলোচনা করা হয়। 

ব্যবহারিক জ্যামিতি

ব্যবহারিক জ্যামিতি হল জ্যামিতির একটি শাখা যা আমাদের চারপাশের বিশ্বের জ্যামিতিক বৈশিষ্ট্যগুলি বোঝার জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি স্থাপত্য, প্রকৌশল, শিল্প, নকশা এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

ব্যবহারিক জ্যামিতির কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল:

  • বিন্দু, রেখা, কোণ, ক্ষেত্র, তল এবং অন্যান্য জ্যামিতিক ধারণাগুলোর গ্রাফিকাল উপস্থাপনা বা আঁকতে পারা।
  • জ্যামিতিক ধারণা গুলো ব্যবহার করে সমস্যা সমাধান
  • জ্যামিতিক ধারণা গুলো ব্যবহার করে নকশা এবং নির্মাণ কাজে প্রয়োগ করা। 

তাত্ত্বিক জ্যামিতি 

তাত্ত্বিক জ্যামিতি হল জ্যামিতির এমন একটি শাখা যা জ্যামিতিক মুল বিষয়গুলির মধ্যে সম্পর্ক এবং জ্যামিতিক উপপাদ্যগুলি প্রমাণ করার উপর জোর দেয়।

তাত্ত্বিক জ্যামিতির কিছু উদাহরণ হল:

  • ইউক্লিডীয় জ্যামিতি: এটি জ্যামিতির সবচেয়ে প্রাচীন এবং সবচেয়ে বিখ্যাত শাখা। এটি বিন্দু, রেখা, কোণ, ক্ষেত্র, তল এবং অন্যান্য জ্যামিতিক ধারণা গুলোর উপর ভিত্তি করে।
  • অ-ইউক্লিডীয় জ্যামিতি: এটি ইউক্লিডীয় জ্যামিতির বাইরে থাকা জ্যামিতি। এটি বিভিন্ন ধরনের জ্যামিতিক তত্ত্ব অন্তর্ভুক্ত করে, যেমন রৈখিক জ্যামিতি, বক্ররেখা জ্যামিতি এবং টপোলজি।
  • অ্যানালিটিক জ্যামিতি: এটি জ্যামিতি এবং ক্যালকুলাসের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে। এটি জ্যামিতিক ধারণাগুলোকে বিন্দু, রেখা, কোণ, ক্ষেত্র, তল এবং অন্যান্য জ্যামিতিক ধারণা গুলোর উপর ভিত্তি করে উপস্থাপন করে।

তাত্ত্বিক জ্যামিতির প্রয়োগ

তাত্ত্বিক জ্যামিতি বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োগ হল:

  • গণিত: জ্যামিতি গণিতের একটি গুরুত্বপূর্ণ শাখা। তাত্ত্বিক জ্যামিতি গণিতের অন্যান্য শাখাগুলির সাথে জ্যামিতির সংযোগ স্থাপন করতে সাহায্য করে।
  • বিজ্ঞান: বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় জ্যামিতি ব্যবহৃত হয়। তাত্ত্বিক জ্যামিতি বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে নতুন তত্ত্ব এবং ধারণাগুলোর বিকাশে সাহায্য করে।
  • প্রযুক্তি: প্রযুক্তির বিভিন্ন ক্ষেত্রে জ্যামিতি ব্যবহৃত হয়। তাত্ত্বিক জ্যামিতি প্রযুক্তির ক্ষেত্রে নতুন পদ্ধতি এবং নকশা তৈরিতে সাহায্য করে।

তাত্ত্বিক জ্যামিতি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা গণিত, বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

জ্যামিতির বিভিন্ন উপাদানের ধারণা 

জ্যামিতি কাকে বলে

জ্যামিতিতে বিন্দুর ধারনা  

জ্যামিতিতে, বিন্দু হল এমন একটি বস্তু যাতে কোনো মাত্রা নেই। এটিকে একটি নির্দিষ্ট অবস্থান নির্দেশ করতে ব্যবহার করা হয়।

জ্যামিতি কাকে বলে
জ্যামিতি কাকে বলে

জ্যামিতিতে রেখার ধারনা 

জ্যামিতিতে, একটি রেখা হল দুটি বিন্দুর মধ্য দিয়ে অঙ্কিত একটি সরল পথ। রেখার কোনো প্রস্থ নেই, শুধুমাত্র দৈর্ঘ্য আছে।

জ্যামিতিতে রশ্মি 

জ্যামিতিতে, একটি রশ্মি হল একটি রেখা যা একটি বিন্দুতে শুরু হয় এবং অসীম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়।

জ্যামিতিতে রেখাংশ 

জ্যামিতিতে, একটি রেখাংশ হল একটি রেখা যার দুটি প্রান্ত বিন্দু আছে। রেখাংশের একটি নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্য আছে। রেখাংশকে বিভিন্ন জ্যামিতিক আকার তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়।

ইউক্লিডীয় জ্যামিতি

ইউক্লিডীয় জ্যামিতি হল একটি জ্যামিতিক তত্ত্ব যা প্রাচীন গ্রীক গণিতবিদ ইউক্লিড দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই তত্ত্বটি পাঁচটি স্বতঃসিদ্ধ এর উপর ভিত্তি করে তৈরি, যা থেকে অন্যান্য সমস্ত জ্যামিতিক উপপাদ্য প্রমাণ করা যায়।

ইউক্লিডীয় জ্যামিতির স্বতঃসিদ্ধগুলি হল:

  • ১. যে কোনো দুটি বিন্দুকে সংযুক্ত করা যায় একটি সরলরেখা দিয়ে।
  • ২. একটি সরলরেখাকে অসীমে বর্ধিত করা যায়।
  • ৩. একটি বৃত্তের কেন্দ্রের মধ্য দিয়ে একটি সরলরেখা যা বৃত্তটিকে স্পর্শ করে, সেই সরলরেখাটিকে বৃত্তের ব্যাস বলে।
  • ৪. সমকোণী ত্রিভুজের সমকোণের বিপরীত কোণদ্বয় সমান।
  • ৫. যদি একটি সরলরেখা একটি রেখাকে ছেদ করে এবং সেই ছেদবিন্দুতে সৃষ্ট অন্তঃস্থ কোণদ্বয়ের সমষ্টি দুই সমকোণের চেয়ে কম হয়, তাহলে সরলরেখাটিকে ছেদকারী রেখার সমান্তরাল রেখা দ্বারা ছেদিত হবে।

নন ইউক্লিডীয় জ্যামিতি 

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতি হল একটি জ্যামিতিক তত্ত্ব যা ইউক্লিডীয় জ্যামিতি থেকে ভিন্ন। ইউক্লিডীয় জ্যামিতিতে পাঁচটি স্বতঃসিদ্ধ রয়েছে, যা থেকে অন্যান্য সমস্ত জ্যামিতিক উপপাদ্য প্রমাণ করা যায়। নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতিতে এই পাঁচটি স্বতঃসিদ্ধের মধ্যে একটি বা একাধিক পরিবর্তন করা হয়।

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতির দুটি প্রধান শাখা রয়েছে:

  • ১. প্যারাবোলিক জ্যামিতি: এই জ্যামিতিতে ইউক্লিড এর পঞ্চম স্বতঃসিদ্ধ টি সত্য নয়। অর্থাৎ, একটি সরলরেখাকে অসীমে বর্ধিত করলে তা কোনও সময়েই একটি বৃত্তের ব্যাস হবে না।
  • ২. হিপারবোলিক জ্যামিতি: এই জ্যামিতিতে ইউক্লিড এর পঞ্চম স্বতঃসিদ্ধটি সত্য নয়। অর্থাৎ, একটি সরলরেখাকে অসীমে বর্ধিত করলে তা অসীমে বিচ্ছিন্ন হবে।

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতির গুরুত্ব

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতি গণিতের একটি গুরুত্বপূর্ণ শাখা। এটি মহাবিশ্বের জ্যামিতি বোঝার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পাল করে।

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতির সাহায্যে, আমরা বুঝতে পারি যে ইউক্লিডীয় জ্যামিতি মহাবিশ্বের একমাত্র সম্ভাব্য জ্যামিতি নয়। মহাবিশ্বের কিছু অংশে, প্যারাবোলিক বা হিপারবোলিক জ্যামিতি প্রযোজ্য হতে পারে।

নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতি মহাবিজ্ঞান, প্রকৌশল এবং অন্যান্য বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োগ রয়েছে।

জ্যামিতি কাকে বলে – FAQ

ইউক্লিড কোথায় জন্মগ্রহণ করেন? 

ইউক্লিডের জন্মস্থান নিয়ে মতভেদ রয়েছে। কিছু ঐতিহাসিকের মতে, তিনি মিশরের আলেকজান্দ্রিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। অন্যদের মতে, তিনি গ্রীসের মেগারায় জন্মগ্রহণ করেন।

প্রাচীন গ্রিসে জ্যামিতির ব্যবহার গুলি কি?

প্রাচীন গ্রিসে জ্যামিতির ব্যাপক ব্যবহার ছিল। এটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হত, যেমন:

  • জমির পরিমাপ: প্রাচীন গ্রিসে জমির মালিকানা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল। জমির পরিমাপের জন্য জ্যামিতি ব্যবহার করা হত।
  • স্থাপত্য: প্রাচীন গ্রিকরা জ্যামিতি ব্যবহার করে সুন্দর ও স্থায়ী স্থাপত্য নির্মাণ করত। মন্দির, অ্যাম্ফিথিয়েটার, স্নানাগার ইত্যাদি প্রাচীন গ্রিক স্থাপত্যের উল্লেখযোগ্য উদাহরণ।
  • জ্যোতির্বিদ্যা: প্রাচীন গ্রিকরা জ্যামিতি ব্যবহার করে গ্রহ-নক্ষত্রের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করত।

 

নন ইউক্লিডীয় জ্যামিতি কে আবিষ্কার করেন?

 

লেইবনিজ কে নন-ইউক্লিডীয় জ্যামিতির প্রকৃত আবিষ্কারক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তবে, লোবাচেভস্কি এবং বোলাই এই তত্ত্বের বিকাশে আরও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

শেখ কথা, 

প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, আজকের এই লেখায় আমরা জানলাম গণিতের অন্যতম প্রধান শাখা জ্যামিতি নিয়ে। আমাদের ব্লগে আমরা নিয়মিত এই জাতীয় লেখা দিয়ে থাকি যা বিভিন্ন বোর্ড পরীক্ষা ও চাকুরীর প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুপ্তপূর্ণ।  তাই নিয়মিত আমাদের ব্লগ পড়ুন।  ধন্যবাদ।  

Also read:  রম্বসের ক্ষেত্রফল নির্ণয়ের সূত্র 

 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents