Dreamy Media BD

শিষ্টাচার রচনা | ২০ টি পয়েন্ট | উক্তি সহকারে ২৫০০+ শব্দ | pdf download

প্রিয় শিক্ষার্থীরা আমাদের আজকের রচনা ‘শিষ্টাচার’।  আজকের এই রচনাটি ২০ টি পয়েন্টে প্রায় ২৫০০+ শব্দে লেখা হয়েছে যেন পরীক্ষার্থীরা একবার পরেই নিজের মতো করে লিখতে পারে। রচনাটিতে প্রাসঙ্গিক অনেকগুলি উক্তি ও কবিতা ব্যবহার করা হয়েছে যা শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় সর্বাধিক নম্বর অর্জনে সাহায্য করবে। রচনাটি সহ যে কোন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য অত্যান্ত গুরুপ্তপূর্ণ।  

শিষ্টাচার 

( এই রচনাটি আরও যে নামে আসতে পারে ) 

বা সৌজন্যবোধ, 

বা মানব জীবনে শিষ্টাচার ও সৌজন্যবোধ, 

বা জীবন গঠনে শিষ্টাচার ও সৌজন্যবোধ, 

বা ছাত্র জীবনে শিষ্টাচার ও সৌজন্য

ভূমিকা 

একজন চিত্রকর যেভাবে ক্যানভাসে রঙ ঢেলে তার মনের ছবিটি ফুটিয়ে তোলে, আমাদের জীবনও ঠিক একই রকম। প্রতিটি দিন, প্রতিটি মুহূর্তে আমরা আমাদের জীবনের ক্যানভাসে রঙ লাগাই. কিন্তু এই রঙ নয় বরং আমাদের আচরণ দিয়ে আমরা আঁকি আমাদের জীবনের প্রতিচ্ছবি। আর সেই আঁকা প্রতিচ্ছবির এক অন্যতম মূল্যবান রঙই হল শিষ্টাচার। শিষ্টাচার কেবল সামাজিক রীতি নয়, এটি একটি শিল্প। এটি সুন্দর শব্দে বিনয়ের রঙ লাগায়, মৃদু হাসিতে দয়ার রঙ ছড়ায়, এবং সাহায্যের হাতে মিত্রতার রঙ সাজায়। এটি ভেতরের মানবিকতার উজ্জ্বল প্রকাশ, যা আমাদের জীবনকে সুন্দর ও সম্মানিত করে তোলে।

দার্শনিক জনাথন সুইফট বলেছেন, 

 “Good manners are the little things that make big things possible.”

শিষ্টাচারের স্বরূপ 

শিষ্টাচার কেবল বাইরের চাকচিক্য নয়, এটি আমাদের আত্মার সৌন্দর্যের প্রতিফলন। এটি একটি অভ্যন্তরীণ নৈতিক কম্পাস, যা আমাদের আচরণ, কথা, চিন্তা ও কাজগুলোকে সঠিক পথে পরিচালিত  করে। এটি আমাদের আত্মিক মর্যাদা বজায় রেখে অন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান দেখানোর একটি জীবনধারা।

শিষ্টতা হল একটি কলি, যার পাপড়িগুলো নানা গুণের সমাহার। নম্রতা, সত্যবাদিতা, দায়িত্ববোধ, সহযোগিতা, সময়ের মূল্যবোধ, পরিচ্ছন্নতা ও সুশীলতা – এসব গুণ মিলেই শিষ্টাচারের সুন্দর ফুল ফোটে। যখন আমরা নিজেকে উঁচু করার চেয়ে অন্যদের সমান মর্যাদা দিই, সত্য কথা বলি, নিজের কাজের প্রতি দায়িত্বশীল থাকি, অন্যদের সাহায্য করি, সময়ের গুরুত্ব বুঝি, শারীরিক ও মানসিকভাবে পরিষ্কার থাকি এবং মধুর ভাষা ব্যবহার করে কথা বলি, তখনই আমরা শিষ্টাচারের পথে অগ্রসর হই।

এই পথে চলা আমাদের জীবনকে সহজ করে তোলে। আমরা সমাজে সম্মান ও অহমিকা লাভ করি। আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং মানসিক সুস্থতা বজায় থাকে। ভালো সম্পর্ক গড়ে ওঠে, জীবনের নানা কাজ সহজ হয়। আমরা সৎ ও দায়িত্ববোধ সম্পন্ন মানুষ হিসেবে নিজেকে গর্বের সাথে উপস্থাপন করতে পারি।

শিষ্টাচারের পথ কেবল নিজের জন্য নয়, সমাজের কল্যাণের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। যখন আমরা সবাই শিষ্ট আচরণ করি, তখন সমাজে সহিষ্ণুতা, সহযোগিতা ও শান্তির পরিবেশ তৈরি হয়। আমরা একে অপরের প্রতি উদার ও সহানুভূতিশীল হয়ে উঠি, যা সমাজকে আরও মানবিক ও সুন্দর করে তোলে।

শিষ্টাচার অর্জনের উপায়  

শিষ্টাচার এক দিনে অর্জন করার বিষয় নয়, এটি জীবনব্যাপী চর্চা ও শিক্ষার ফল। এই শিক্ষার প্রথম স্কুলটি আমাদেরই পরিবার। জন্মের পর থেকেই আমরা আমাদের বাবা-মা, দাদা-দাদী, ভাই-বোনের কাছ থেকে নৈতিকতার প্রথম পাঠ গ্রহণ করি। তাদের আচার-অনুষ্ঠান, কথাবার্তা, আন্তঃক্রিয়া থেকেই আমরা শিখি সম্মান, নম্রতা, দায়িত্ববোধ, সত্যবাদিতা, সহযোগিতা, সময়ের মূল্যবোধের মতো গুরুত্বপূর্ণ গুণাবলী।

পরিবারের পরেই আসে বিদ্যালয়ের পাঠ। শিক্ষকরাই আমাদের জ্ঞানের দ্বার উন্মোচন করেন, শুধুই পাঠ্যপুস্তক থেকে নয়, আচার-ব্যবহারের মাধ্যমেও। তাদের শৃঙ্খলাবদ্ধ আচরণ, শিক্ষার্থীদের প্রতি সম্মান, সুশীল ভাষা আমাদের জন্য অনুকরণীয় হয়। সহপাঠীর সাথে সহযোগিতা, শিক্ষকের নির্দেশনা মেনে চলা, সময়ের মূল্যবোধ বুঝে পড়া – স্কুল জীবনেই আমরা শিখি ।

সমাজ আমাদের বৃহত্তর শিক্ষক। আশেপাশে, বাজারে, গণপরিবহনে আমরা নানা মানুষের সাথে মিশে, তাদের আচার-অনুষ্ঠান পর্যবেক্ষণ করে শিখি। ভালো মানুষের শিষ্টাচার আমাদের অনুপ্রেরণা জোগায়, আর খারাপ মানুষের আচরণ থেকে আমরা শিক্ষা নিই কীভাবে চলব না। সমাজের রীতি-নীতি, উৎসব-পার্বণ, ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমেও আমরা শিখি শৃঙ্খলা, নম্রতা, সহযোগিতা ও সমাজের প্রতি দায়িত্ববোধ।

তাই তো কবি সুনির্মল বসুর কথায় , 

“বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর, 

সবার আমি ছাত্র, 

নানান ভাবে নতুন জিনিস 

শিখছি দিবারাত্র।”

অর্থাৎ,  পরিবার থেকে শুরু করে সমাজ, সংস্কৃতি, ধর্ম পর্যন্ত সবকিছুই আমাদের শিষ্টাচার অর্জনে ভূমিকা রাখে। প্রতিটি পরিবেশ, প্রতিটি মানুষই আমাদের শিক্ষক। তাই চোখ খোলা রেখে, মনযোগ দিয়ে শেখার চেষ্টা করলেই আমরা গড়ে তুলতে পারি সুন্দর ও শিষ্টাচার মন্ডিত জীবন।

শিষ্টাচারের গুরুত্ব 

শিষ্টাচার একটি সুন্দর গহনা, যা আমাদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে অমূল্য আলোক ছড়িয়ে দেয়। 

ক) ব্যক্তিগত জীবনে:

  • শিষ্টাচার আমাদের সঠিক কাজ করার আত্মবিশ্বাস বাড়ায়। সত্যবাদিতা, দায়িত্ববোধ ও নৈতিকতার পথে চলার ফলে আমরা জীবনের বিপত্তি মোকাবেলার শক্তি অর্জন করি।
  • শিষ্টাচারী ব্যক্তি অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল ও সহযোগিতা-প্রবণ হয়। এটি মানসিক চাপ কমায়, সুখ ও শান্তি বজায় রাখে।
  • শিষ্টাচারের গুণাবলি, যেমন- সময়ের মূল্যবোধ, দায়িত্ববোধ, সহযোগিতা, আমাদের সকল কাজে সফল হতে সাহায্য করে, ফলে আমাদের পড়াশোনা, কর্মজীবন, ব্যক্তিগত উদ্যোগ – সবকিছুতেই সফলতা আসে।

খ) পারিবারে:

  • শিষ্টাচারী পরিবারে সদস্যদের মধ্যে পারস্পরিক সম্মান, বোঝাপড়া ও সহযোগিতা বৃদ্ধি পায়। এটি পরিবারে শান্তিপূর্ণ, সুখী ও সুস্থ পরিবেশ গড়ে তোলে।
  • শিষ্টাচারের গুণাবলি পরিবারের সদস্যদের মধ্যে মধুর সম্পর্কএর সেতু গড়ে তোলে। ফলে এটি পারিবারিক দ্বন্দ্ব কমায়, বন্ধন শক্তিশালী করে এবং পরিবারকে একসাথে টেনে রাখে।
  • শিষ্টাচারী বাবা-মা সন্তানদের জন্য অনুকরণীয় হয়। তাদের আচার-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সন্তানরা নৈতিক মূল্যবোধ, সঠিক-ভুলের পার্থক্য শিখতে পারে।

গ) সামাজের গৌরব:

  • শিষ্টাচারী নাগরিকদের কারণে সমাজে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় থাকে। শিষ্টাচারী নাগরিকরা আইন-শৃঙ্খলা মেনে চলেন, অন্যের অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হন, এবং সহিংসতা ও অস্থিতিশীলতা থেকে দূরে থাকেন। 
  • শিষ্টাচারী ব্যক্তিরা সমাজে নৈতিক মূল্যবোধের প্রচার করে। 
  • শিষ্টাচারী নাগরিকরা রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সহায়তা করেন।  

সামগ্রিকভাবে, শিষ্টাচারী নাগরিক সমাজের জন্য একটি সম্পদ। তারা সমাজে শান্তি, সমৃদ্ধি, ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

শিষ্টাচার: সুন্দর জীবনের চাবিকাঠি

সুখ আর সাফল্য – জীবনের দুটি উজ্জ্বল লালসা, যেগুলো আমাদের সবাইকে অনুপ্রাণিত করে। কিন্তু এই পথের চাবিকাঠিটি খুঁজে পাওয়া অনেক সময়ই কঠিন হয়। তবে সেই চাবিকাঠিটি রয়েছে আমাদের নিজেরই হাতে, সেটা – শিষ্টাচার।

শিষ্টাচার শুধুমাত্র আচার-অনুষ্ঠানের শক্ত নিয়ম নয়, বরং এটি আমাদের আত্মার মন্দিরে উজ্জ্বল নৈতিকতার আলো। এটি অন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা, সত্যবাদিতা, দায়িত্ববোধ ও সহযোগিতার সুন্দর সমাহার। এই গুণাবলিগুলোই আমাদের জীবনে সুখ ও সাফল্যের দ্বার খুলে দেয়। তাই তো চাণক্য বলেছেন, 

ভালো ব্যবহার দ্বারা বন্ধু, এমনকি শত্রুরও মন জয় করে নেওয়া সম্ভব। 

শিষ্টাচারী ব্যক্তি মিথ্যাচার ও কূটচক্রের পথ এড়িয়ে সত্যবাদিতার উজ্জ্বল পথে চলে। ফলে সে আত্মবিশ্বাস ও স্বচ্ছন্দ্য লাভ করে। তার আশেপাশে ছড়িয়ে পড়ে আন্তরিকতার সুবাস, যা অন্যদের কাছে তাকে আকর্ষণীয় করে তোলে। সহজেই গড়ে ওঠে সুন্দর সম্পর্ক, যা জীবনের পথকে আরও মসৃণ করে। এর ফলে কাজ হয় ঠিকঠাক, লাভ হয় সাফল্যের মিষ্টি ফল। আর সাফল্য, নিশ্চিতভাবেই জীবনে সুখ নিয়ে আসে।

ছাত্র জীবনে শিষ্টাচার 

ছাত্রজীবন হলো জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ সময়, যেখানে শিক্ষা, অভিজ্ঞতা ও নৈতিকতার প্রাথমিক পাঠ পাওয়া যায়। এই সময়ে শিষ্টাচারের গুরুত্ব অপরিসীম, ছাত্রজীবনে শিষ্টাচারের গুরুত্ব:

  • ভালো ফল অর্জন: শিষ্টাচারী ছাত্ররা সত্যবাদী, দায়িত্বশীল ও মনোযোগী হন। তারা নিয়মিতভাবে পড়াশোনা করেন, শিক্ষকদের কথা মনোযোগ সহকারে শোনেন , ফলে তাদের শিক্ষাগ্রহণের মান ভাল হয় এবং ভালো ফল অর্জন করেন।
  • সুন্দর সম্পর্ক গড়ে তোলা: শিষ্টাচারী ছাত্ররা শিক্ষক, সহপাঠী ও অন্যান্যদের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা দেখান। তারা সহজেই বন্ধুত্ব গড়ে তুলতে পারেন। 
  • নৈতিক গঠন: শিষ্টাচারী ছাত্ররা নৈতিক মূল্যবোধ, যেমন সত্যবাদিতা, ন্যায়পরায়ণতা, দায়িত্ববোধ ও সহযোগিতা, নিজেদের জীবনে অনুশীলন করেন। এর ফলে তারা ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠেন এবং সমাজে ইতিবাচক অবদান রাখতে পারেন।
  • চাপ মোকাবেলা: শিষ্টাচারী ছাত্ররা চাপ মোকাবেলায় দক্ষ হন। তারা তাদের সময়সূচী সঠিকভাবে বজায় রাখেন, কাজের গুরুত্ব বুঝতে পারেন এবং বেহুদা চাপ এড়িয়ে চলেন।  
  • নেতৃত্বের গুণাবলি বিকাশ: শিষ্টাচারী ছাত্ররা সাধারণত আত্মবিশ্বাসী ও দায়িত্বশীল হন। তারা অন্যদের সাথে সহযোগিতা করতে পারেন এবং নিজেদের মতামত প্রকাশ করতে দ্বিধা করেন না। এর ফলে তাদের নেতৃত্বের গুণাবলি বিকাশ লাভ করে, যা তাদের ভবিষ্যতে সফল হতে সহায়তা করে।

সারাংশে, ছাত্রজীবনে শিষ্টাচারের গুরুত্ব অপরিসীম। এটি শুধুমাত্র ভালো ফল অর্জন করতেই সহায়তা করে না, বরং একটি সুন্দর ও সফল জীবনের ভিত্তিও স্থাপন করে।  

পারিবারিক জীবনে শিষ্টাচার 

পারিবারিক জীবন – সুখ-দুঃখের সুরে বেঁধে দেওয়া এক মধুর কাব্য। এই কাব্যের ছন্দ আরও মধুর করতে, জীবনের গভীর অর্থ খুঁজতে শিষ্টাচারই সেরা হাতিয়ার।  

মিষ্টি কথার মতোই, শিষ্টাচারী ব্যবহার পারিবারিক সম্পর্ককে মজবুত করে। এখানে মতামতের পার্থক্যে কলহ নয়, সমঝোতার সুর বাজে। ফলে, শান্তির শীতল হাওয়া ঘরে বয়ে যায়।

শিষ্টাচারের আলোয়, সন্তানরা ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠে। মাতা-পিতা তাদের আদর্শ, ভালোবাসা ও শৃঙ্খলার মাধ্যমে শিষ্টাচারের বীজ বপন করেন। সত্যবাদিতা, দায়িত্ববোধ, সহানুভূতি আর সহযোগিতার গুণ শিশুদের হৃদয়ে গভীরভাবে বদ্ধমূল হয়ে ওঠে। ফলে, ভবিষ্যতে তারা সুন্দর জীবন গড়ে তোলে, সমাজে আলো ছড়িয়ে দেয়। ভাই-বোনের বন্ধন আরও মজবুত হয় শিষ্টাচারের সুতায়। এখানে, একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা, ঈর্ষা ও কলহের অন্ধকারকে দূরে সরিয়ে দেয়। সুখে-দুঃখে পাশে থাকা, হাসি-কান্নায় মিলেমিশে যাওয়া – এসবই জীবনের সুর মধুর করে তোলে।

তাই, শিষ্টাচার – পারিবারিক জীবনের সোনালী সূত্র। এটি শুধুমাত্র সুখ ও শান্তিই দেয় না, গড়ে তোলে একটি সুন্দর ও সমৃদ্ধ পরিবার।  

শিষ্টাচার ও সমাজ জীবন 

সমাজ, একটি বৃহৎ প্রতিষ্ঠান, যেখানে বিভিন্ন মানুষ, বিভিন্ন মত, বিভিন্ন বিশ্বাস নিয়ে একসঙ্গে বসবাস করে। এই শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের মূল মন্ত্র হলো শিষ্টাচার। শিষ্টাচারী ব্যক্তিরা আয়নার মতো, সমাজের সত্যিকার অবস্থা দেখান। তারা সত্যবাদী, দায়িত্বশীল, ন্যায়পরায়ণ। নিয়ম-কানুন মেনে চলেন, অন্যের অধিকারকে সম্মান করেন। ফলে, সমাজে আইন-শৃঙ্খলা বজায় থাকে, অপরাধ কমে, সবার জন্যই নিরাপদ পরিবেশ গড়ে ওঠে। শিষ্টাচার, বিভিন্ন মতের মধ্যে সেতু বন্ধন করে। জাতি, ধর্ম, বর্ণের পার্থক্যের দেয়াল ভেজিয়ে শিষ্টাচার ঐক্যের সমাজ প্রতিষ্ঠা করে। শিষ্টাচারীরা সমাজের উন্নয়নে উদ্যোগী, নিজেদের সময় ও দক্ষতা দিয়ে কাজ করেন। ফলে, সমাজের উন্নয়নে গতি আসে, সবারই জীবনমান উন্নত হয়।

ধর্মীয় জীবন ও শিষ্টাচার

ধর্ম ও শিষ্টাচারের মধ্যে গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ধর্ম আমাদের নৈতিক মূল্যবোধ ও আচরণের নির্দেশিকা প্রদান করে, যা শিষ্টাচারের ভিত্তি। ধর্মীয় জীবনের মাধ্যমে আমরা ভালো মানুষ হওয়ার শিক্ষা পাই।

ধর্ম যেভাবে ভালো মানুষ হওয়ার শিক্ষা দেয়ঃ

  • ধর্ম আমাদের সত্যবাদিতা, ন্যায়পরায়ণতা, দায়িত্বশীলতা, সহনশীলতা, সহমর্মিতা, ভালোবাসা, সহযোগিতা, ইত্যাদি গুণাবলী অর্জনে সহায়তা করে।
  • ধর্ম আমাদের অন্যদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে শেখায়।
  • ধর্ম আমাদের অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে শেখায়।
  • ধর্ম আমাদের সামাজিক দায়িত্ববোধ জাগিয়ে তোলে।

ধর্মের বিভিন্ন ধর্মীয় গ্রন্থে শিষ্টাচারের গুরুত্ব সম্পর্কে অনেক উদ্ধৃতি রয়েছে। যেমন,

ইসলামে:

 শিষ্টাচারের গুরুত্ব সম্পর্কে নবী সা: ইরশাদ করেন, 

‘নিশ্চয়ই উত্তম চরিত্র, ভালো ব্যবহার ও পরিমিত ব্যয় বা মধ্যপন্থা অবলম্বন করা নবুওতের ২৫ ভাগের ১ ভাগ।’ (আবু দাউদ-৪৭৭৬)

হিন্দু ধর্মে:

“যে ব্যক্তি অন্যের প্রতি দয়া করে না, সে ঈশ্বরের প্রতিও দয়া করে না।” (গীতা, ১২:১৪)

খ্রিস্টধর্মে:

“তোমরা তোমাদের প্রতিবেশীকে নিজের মতো ভালোবাসবে।” (বাইবেল, লূক ১০:২৭)

বৌদ্ধধর্মে:

“অপমানিত ব্যক্তিকে অপমান করো না, বরং তাকে ক্ষমা করো এবং তার সাথে ভালো ব্যবহার করো।” (ধম্মপদ, ১৪:১৬)

সুতরাং, ধর্মীয় জীবনে শিষ্টাচারের গুরুত্ব অপরিসীম। ধর্মীয় শিক্ষা আমাদেরকে শিষ্টাচারের গুণাবলি অর্জন করতে সাহায্য করে। তাই, আমরা সকলেই ধর্মীয় শিক্ষার আলোকে চলার মাধ্যমে সুন্দর ও সুখী সমাজ গঠনে অবদান রাখতে পারি।

শিষ্টাচার সংস্কৃতির ধারক

শিষ্টাচার, একটি সুন্দর সমাজের আয়না। এটি শুধুমাত্র ব্যক্তিগত আচরণ নয়, বরং সমগ্র সমাজের মূল্যবোধ, আদর্শ ও সংস্কৃতির প্রতিফলন। প্রতিটি সমাজেরই নিজস্বের শিষ্টাচার, যা তাদের অন্যদের থেকে আলাদা করে। এই আচার-ব্যবহার, ঐতিহ্য ও নিয়মকানুনের মাধ্যমে সমাজের মূল্যবোধ লালিত হয় এবং সংস্কৃতি ধারণ করে।

জাপানিদের নম্রতা ও শ্রদ্ধা, আমেরিকার টেক্সাসবাসীর স্বেচ্ছাসেবা, জার্মানদের নিয়মতান্ত্রিকতা ও দক্ষতা, চীনা পরিবারের পারিবারিক মূল্যবোধ ও শ্রদ্ধা, বাঙ্গালি ও আরবের অতিথিপরায়ণতা – এই উদাহরণগুলি বলে দেয়, কীভাবে শিষ্টাচার বিভিন্ন সমাজের সংস্কৃতিকে ধারন করে।

একটি সমাজের শিষ্টাচার তার উৎসব, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, শুভেচ্ছা বিনিময়, সামাজিক আচার-অনুষ্ঠানের মধ্যেও প্রতিফলিত হয়। এমনকি, গান, নাচ, চিত্রকলা, সাহিত্যেও সমাজের শিষ্টাচারের ছাপ থাকে।

সংস্কৃতি, এক গভীর সমুদ্র, আর সেই নদীর দিকনির্দেশক বাতিঘর হলো শিষ্টাচার। শিষ্টাচার কেবল নিয়ম-কানুন নয়, এটি একটি আদর্শ।

ডিজিটাল যুগে শিষ্টাচার 

সোশ্যাল মিডিয়ার ঝলমলে পর্দার আড়ালে, ডিজিটাল যুগে শিষ্টাচার চর্চা এক নতুন ধরনের চ্যালেঞ্জ। অবাধ কথোপকথনের এই ময়দানে, নামহীনতা ও দূরত্বের আড়ালে কখনও কখনও আমাদের আচরণে ফাটল ধরে। 

কারও ফেসবুক পোস্টে অশোভন মন্তব্য, অপমানজনক কথাবার্তা, এমনকি সাইবার বুলিং – এই সবই এখন খুবই স্বাভাবিক বেপার হয়ে দারিয়েছে। তথ্যের এই অতিশয় প্রবাহে আমরা যাচাই না করেই শেয়ার করে ফেলি, এর ফলে অন্যের মন ক্ষুণ্ন হয়, সমাজে অশান্তি বারে।

ডিজিটাল যুগে শিষ্টাচার চর্চা কঠিন, অসম্ভব নয়। এই চ্যালেঞ্জের মোকাবেলায় চাই সচেতনতা ও দায়িত্ববোধ। মনে রাখতে হবে, অনলাইনেও বাস্তব জগতের মতোই সবার প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা দেখানো উচিত। বিনোদন ও মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা আমাদের আছে, কিন্তু তা যেন অন্যের মনের শান্তি ছিনে না আনে। কোনো পোস্টে মন্তব্য করার আগে একটু চিন্তা করতে হবে, তা কারও মন খারাপ করবে কি না। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ার চেয়ে সুস্থির মনে মতামত প্রকাশ করতে হবে। অনলাইনে পাওয়া সব তথ্যই সত্যি না, তাই কোনো কিছু শেয়ার করার আগে তার সত্যতা যাচাই করা জরুরি। 

ডিজিটাল যুগে শিষ্টাচার হলো মর্যাদার আয়না। আসুন, এই আয়না উজ্জ্বল রাখি, নিজের আচরণে সোশ্যাল মিডিয়ার অন্ধকারকে তাড়িয়ে। একটু সচেতনতা, একটু দায়িত্ববোধ – এটুকুই যথেষ্ট আমাদের ডিজিটাল পৃথিবীকে আরও সুন্দর ও শিষ্ট করে তুলতে।

 শিষ্টাচার: সফলতার সোপান

জীবনের সফলতা কী? অর্থ, খ্যাতি, ক্ষমতা – এসব কিছুই সফলতার একমাত্র নির্দেশক নয়। সত্যিকারের সফলতা নির্ভর করে আমাদের চারিত্র্য, মূল্যবোধ এবং অন্যদের সাথে আচরণের উপর। আর এই ক্ষেত্রে শিষ্টাচারের গুরুত্ব অপরিসীম। শিষ্টাচার হলো সেই সোপান, যা আমাদেরকে জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনে সাহায্য করে। 

১. বিশ্বাসযোগ্যতা ও সম্মান: শিষ্ট ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা অন্যদের বিশ্বাস অর্জন করতে পারি। সত্যবাদিতা, ন্যায়পরায়ণতা, দায়িত্ববোধ – এই গুণাবলি আমাদের চরিত্রকে সুন্দর করে এবং অন্যদের চোখে সম্মানিত করে তোলে। ফলে, পেশাদার জীবনে, ব্যবসায়, এমনকি ব্যক্তিগত সম্পর্কেও আমরা সফলতা অর্জন করতে পারি।

২. ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি: শিষ্টাচার এর মাধ্যমে আমরা ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি বজায় রাখতে পারি।ফলে, আমরা জীবনের লক্ষ্য অর্জনে আরও বেশি উদ্যম ও নিষ্ঠা নিয়ে কাজ করতে পারি।

৩. কর্মদক্ষতা: শিষ্টাচারী ব্যক্তি নিয়মতান্ত্রিক, দায়িত্ববোধ সম্পন্ন ও নিবেদিতপ্রাণ। ফলে তাদের কাজের মান উচ্চ হয় যা তাকে পেশাগত জীবনে সফলতা এনে দেয়।

৪. নেতৃত্বের গুণাবলি: শিষ্টাচারী ব্যক্তি ইতিবাচক, উৎসাহী ও অন্যদের অনুপ্রেরণা দেয়। ফলে সে স্বাভাবিকভাবেই নেতৃত্বের গুণাবলি অর্জন করে। এই নেতৃত্বের গুণাবলি বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার সফলতা নিশ্চিত করে।

শুধু পেশাগত জীবন নয়, শিষ্টাচার পারিবারিক, সামাজিক ও ব্যক্তিগত জীবনেও সফলতা আনতে সহায়তা করে।  

শিষ্টাচারহীন জীবনের পরিণাম

শিষ্টাচারহীন জীবন, তুফানের মধ্যে ভাসমান নৌকা, যা যে কোনো মুহুর্তে তলিয়ে যেতে পারে। এই নৌকায় ভরসা নেই, নিশ্চয়তা নেই, শুধুই আছে অন্ধকারের অতল গহ্বর। ব্যক্তিগত, সামাজিক, পারিবারিক, পেশাগত – জীবনের কোনো ক্ষেত্রেই শিষ্টাচারহীনতার উপকার নেই, বরং প্রতিটি ক্ষেত্রেই কঠিনতা ও ব্যর্থতার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

ব্যক্তিগত জীবনে, শিষ্টাচারহীনতা আত্মবিশ্বাসের বিষাক্ত ও আত্মগ্লানির বীজ বপন করে। অসৎ কাজের কাঁটা হৃদয়ে বিঁধে থাকে, সুখ ও শান্তির পথ রুদ্ধ করে। ফলে সম্পর্কের জটিলতা বাড়ে, বন্ধুত্ব ভাঙে, পরিবারে অশান্তি নামে। একাকিত্ব ও অবহেলার নির্মম দাঁত এসব জীবনকে কামড়ে ধরে।

সামাজিক জীবনেও শিষ্টাচারহীনতা হয়ে ওঠে অপমানের কলঙ্ক। খারাপ নামের ভূত পিছু পিছু তাড়া করে, বিশ্বাসের বন্ধন শিথিল করে। সমাজের চোখে হীনতা, সবার কাছে অবিশ্বাস – এই জীবনে মর্যাদা খুঁজে পাওয়া কঠিন।

শিষ্টাচারহীন জীবন, এক অন্ধকার গলি, যেখানে সুখের আলো পৌঁছে না। চলুন, সবাই মিলে এই অন্ধকার দূর করি, শিষ্টাচারের আলো জ্বালাই। নিজের জীবন, আশেপাশের মানুষের জীবন – সবগুলোকেই সুন্দর ও সফল করি। কারণ, শিষ্টাচারই সফলতার মূল, সুখের চাবিকাঠি।

শিষ্টাচার চর্চার উপায়

শিষ্টাচার চর্চা, ফুলের বাগান করার মতো, লাগে একটু যত্ন আর মমতা। কেবল নিয়মকানুন মেনে চলা নয়, এটি মনের এমন এক পরিবর্তন, যেখানে সত্যনিষ্ঠা, ন্যায়পরায়ণতা, বিনয় ও ভদ্রতা হয়ে ওঠে আমাদের আচরণের চালিকা শক্তি। শিষ্টাচার চর্চার কিছু উপায় হল:

১. সত্যবাদী ও ন্যায়পরায়ণ হওয়া: সত্যবাদিতা ও ন্যায়পরায়ণতা শিষ্টাচারের ভিত্তি। তাই সবসময় সত্য কথা বলা এবং অন্যের অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত।

২. বিনয়ী ও ভদ্র হওয়া: বিনয় ও ভদ্রতা সৌন্দর্য ও সম্মানের পরিচয়। তাই সবসময় অন্যদের প্রতি বিনয়ী ও ভদ্র আচরণ করা উচিত।

৩. শ্রদ্ধাশীল হওয়া: শ্রদ্ধাবোধ শিষ্টাচারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিক। তাই সবসময় বয়স্ক, নারী, প্রতিবন্ধী ও সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত।

৪. সহযোগিতা প্রবণ হওয়া: সহযোগিতা প্রবণতা সমাজকে সুন্দর ও সমৃদ্ধ করে তোলে। তাই সবসময় অন্যদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসা উচিত।

৫. সময়নিষ্ঠ হওয়া: সময়নিষ্ঠতা একটি গুরুত্বপূর্ণ গুণ। তাই সবসময় সময়মতো কাজ করা এবং অন্যদের সময়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত।

৬. পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা: পরিচ্ছন্নতা একটি সামাজিক দায়িত্ব। তাই সবসময় নিজের ও পরিবেশের পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা উচিত।

৭. শিষ্টাচারের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা: শিষ্টাচারের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করলেই এটিকে একটি অভ্যাসে পরিণত করা সম্ভব। তাই সবসময় শিষ্টাচারের গুরুত্ব সম্পর্কে অন্যদের সাথে আলোচনা করা উচিত।

শিষ্টাচার চর্চা, প্রতিদিনের প্রতিটি মুহুর্তের একটি সফর। নিজের অভ্যাস, আচরণ, মনোভাব – সবকিছুতেই সচেতনতা আনতে হবে।  সত্যবাদিতা, ন্যায়পরায়ণতা,সুশিক্ষা, বিনয় ও ভদ্রতা  – এগুলোই এই সফরে আমাদের সহযাত্রী। 

উপসংহার 

শিষ্টাচারহীন জীবন, এক ঘন কুয়োর অন্ধকারের মতো, যেখানে সুখ, সফলতা আর সম্মানের আলোক পাওয়া যায় না। এমন জীবন, এক বিশৃঙ্খল নৌকা, যা কোনো নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে না। প্রতিটি ক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত, সামাজিক, পারিবারিক, এমনকি পেশাগত জীবনেও শিষ্টাচারহীনতা এনে দেয় কেবলই কষ্ট আর ব্যর্থতা।

সুতরাং, সফল ও সুখী জীবনের চাবিকাঠি হলো শিষ্টাচার। আসুন, সবাই মিলে এই আলোকে জ্বালিয়ে রাখি, নিজের জীবনকে, পরিবারকে, সমাজকে উজ্জ্বল করে তুলি। শিষ্টাচারহীনতার অন্ধকারকে দূরে সরিয়ে, সুন্দর ও সার্থক জীবন গঠন করাই আমাদের সবার লক্ষ্য হওয়া উচিত।

শিষ্টাচার রচনা পিডিএফ 

প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, তোমাদের সুবিধার্থে, রচনার পিডিএফ কপিটি দেওয়া হল। এখনই ডাউনলোড করে তোমারদের ফোনে/পিসিতে রেখে দাও। 

 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents