Dreamy Media BD

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ড্রাইভিং লাইসেন্স এখন নিজে নিজেই করা যায়। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে বিআরটিএ তে গিয়ে ছবি তুলতে হবে এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিতে হবে। বর্তমানে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য অনলাইনে লার্নার হতে হয়। এবং এই লার্নার হওয়ার জন্য ৭৪৮ টাকা জমা দিতে হয়।

এটি সরকারের ফি। তবে এটি পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার প্রক্রিয়া নয়। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য ড্রপ টেস্ট দিতে হয় অথবা মাদক টেস্ট করতে হয়। এক্ষেত্রে সরকারি ফি হিসেবে জমা দিতে হবে ৯১০ টাকা। এই ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স সাধারণত স্মার্ট কার্ড এর মাধ্যমে হয়ে থাকে।

 এক্ষেত্রে সরকারি ফি জমা দিতে হয় ২৭৭২ টাকা। আবার অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নিজে নিজে করা সম্ভব। সে ক্ষেত্রে সরকারি ফি জমা দিতে হয় ৪৪৯৭ টাকা। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। চলুন তাহলে শুরু করা যাক:

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম ২০২৩

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য আপনাকে প্রবেশ করতে হবে http://bsp.brta.gov.bd/ এই লিংকে‌। অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষানবিস ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু করা যাবে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। 

এবং গ্রাহক এই ওয়েবসাইট থেকেই ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রিন্ট করে নিতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে কিছু প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ধাপ ১: 

 

উক্ত লিংকে প্রবেশ করার পর আপনার সামনে একটি পেজ আসবে। সেখান থেকে “মেনু নির্বাচন করুন” এই অপশনে ক্লিক করুন। এখান থেকে আপনি যে কাজটি করতে চাচ্ছেন সেই কাজের নাম আপনার সামনে চলে আসবে। এখান থেকেই মূলত আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ধাপ ২

এই পর্যায়ে এসে আপনার সামনে “ড্রাইভিং লাইসেন্স” নামে একটি অপশন আসবে। এখান থেকে “নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু”এই অপশনে ক্লিক করবেন। এখানে ক্লিক করার পর আপনার সামনে অন্য একটি পেজ আসবে। সেখানে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার যাবতীয় প্রক্রিয়া বর্ণনা করে দেওয়া হবে।

 

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ধাপ ৩:

ছবির মত ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির পূর্ব শর্ত এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে কত টাকা খরচ হবে সব বিস্তারিত আলোচনা করা থাকবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ধাপ ৪:

 

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

 

ধাপ ৫:

প্রয়োজনীয় জন্য কাগজপত্র এবং আপনি যদি ডুবলিকেট ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে চান তার জন্য যে সব কাগজপত্র লাগবে সব এই পেজে উল্লেখ করা থাকবে। সর্বশেষ পর্যায়ে সামনে একটি ড্রাইভিং লাইসেন্সের process flow আসবে। এটির মাধ্যমে আপনি খুব ভালোভাবে ধারণা নিতে পারবেন কিভাবে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রসেস করা যাবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন ফরম

ড্রাইভিং লাইসেন্স সাধারণত পেশাদার এবং অপেশাদার এই দুই ধরনের হয়ে থাকে। এবং পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন ফরম এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন ফরম এর মধ্যে পার্থক্য রয়েছে।

 পূর্বে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন করার জন্য তিন থেকে চারবার পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত থাকতে হতো। তবে নতুন নিয়ম অনুযায়ী আবেদনকারীকে মাত্র একবার পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে পরীক্ষা দিতে হবে। এবং বায়ো এনরোলমেন্টের জন্য পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে হবে।

এক্ষেত্রে ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে কিউ আর কোডের মাধ্যমে ভেরিফিকেশন করতে হবে। অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করলে আপনার আবেদন কতটুকু ত্বরান্বিত হচ্ছে তা ঘরে বসেই জানতে পারবেন। যেমন: 

  • লাইসেন্স ফি ঘরে বসে জানতে পারবেন জানতে পারবেন এবং প্রদান করতে পারবেন। 
  • পরীক্ষার ফলাফল ঘরে বসে জানতে পারবেন।
  • মটরজান চালানোর অস্থায়ী অনুমতি পত্র ঘরে বসে পাবেন।
  • সিস্টেম জেনারেটৈড স্মার্ট কার্ড ঘরে বসেই পাবেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স কত প্রকার ও কি কি

বাংলাদেশের সরকার কর্তৃক সাধারণত ৫ ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করা হয়ে থাকে। সেগুলো হলো:

  • শিক্ষানবিশ লাইসেন্স,
  • পেশাদার লাইসেন্স,
  • অপেশাদার লাইসেন্স,
  • পিএসভি লাইসেন্স,
  • ইন্সট্রাক্টর লাইসেন্স

তবে আপনি যে ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে চান না কেন সবার আগে আপনাকে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হবে। রাস্তায় গাড়ি চালানোর জন্য জন্য বি আর টি এ কর্তৃক এই লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হয়।

 এই লাইসেন্স সংগ্রহ করার পর দুই থেকে তিন মাস গাড়ির মালিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবেন। সে গাড়ি চালানো শিখলে তারপর পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে মৌখিক এবং ফিল্ড টেস্টে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন ফরম

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন ফর্ম পূরণ করার আগে জানতে হবে কোন কোন যানবাহনের জন্য এই ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করা হয়। সাধারণত মোটরসাইকেল, মোটরবাইক, মোটরক্যাব রিক্সা, হালকা মানের মোটরযান, ভারী মানের মোটরযান এবং ট্রাক্টর এর জন্য এর জন্য এই ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করা হয়ে থাকে।

এই ধরনের আবেদন ফরম পূরণ করার আগে আপনাকে জানতে হবে কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন হয়। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো হলো:

  • ৩ কপি স্ট্যাম্প সাইজের সদ্য তোলা ছবি,
  • এক কপি পাসপোর্ট সাইজের সদ্য তোলা রঙিন ছবি,
  • আবেদনকারীর নাম,
  • আবেদনকারীর পিতা এবং মাতার নাম,
  • আবেদনকারী স্থায়ী ও অস্থায়ী ঠিকানা,
  • আবেদনকারীর রক্তের গ্রুপ,
  • ফিস জমা দেওয়ার কাগজপত্র এবং মেডিকেল সার্টিফিকেট,
  • আবেদনকারীর ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি।

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফরম ডাউনলোড করার জন্য প্রবেশ করুন http://www.bsp.brta.gov.bd/register এই লিংকে। এই ফরমটি পূরণ করার পর আপনাকে অনলাইনে ৫০ টাকা জমা দিতে হবে। তবে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন ফরমটি ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে কোন প্রকার ফি প্রদান করতে হবে না। এই ড্রাইভিং লাইসেন্সের অন্য একটি নাম হল নাম হলো শিক্ষা নবীর ড্রাইভিং লাইসেন্স।

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন করার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রের প্রয়োজন রয়েছে। নিম্মে সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো:

  • ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন করার জন্য যে লিংক উপরে দেওয়ার হয়েছে সেই লিংকে প্রবেশ করে নির্ধারিত আবেদন ফরমে প্রবেশ করতে হবে।
  • রেজিস্টার্ড হসপিটাল অথবা বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছ থেকে মেডিকেল সার্টিফিকেট গ্রহণ করতে হবে।
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি।
  • নির্ধারিত ফি ব্যাংকের মাধ্যমে প্রদান করতে হবে। ক্যাটাগরি এক এর জন্য ৩৪৫ টাকা প্রদান করতে হবে। ক্যাটাগরি ২ এর জন্য ৫১৮ টাকা প্রদান করতে হবে। 
  • ব্যাংক থেকে জমা দানের রশিদ গ্রহণ করতে হবে।
  • বর্তমান সময় তোলা ৩ কপি স্ট্যাম্পস সাইজের রঙিন ছবি এবং এক কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি জমা দিতে হবে।

স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন করার জন্য কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। সেগুলো হলো:

  • আপনি যে ফর্মের মাধ্যমে আবেদন করবেন সেই ফরমের ফটোকপি,
  • ডাক্তার কতৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট,
  • পাসপোর্ট অথবা জন্ম সনদের ফটোকপি,
  • নির্ধারিত ফি ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দিতে হবে। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ১৪৩৮ টাকা ব্যাংকে জমা দিতে হবে এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ২৩০০ টাকা জমা দিতে হবে।
  • সদ্য তোলা তিন কপি স্টাম্প সাইজের ছবি এবং এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি বি আর টি এ এর নির্ধারিত ব্যাংকে জমা দিতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২০২৩

ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি সাধারণত সব ধরনের যানবাহনের জন্য একই রকম হয় না। এটি নির্ভর করে আপনি যে ধরনের গাড়ি চালান তার উপর। সুতরাং ড্রাইভিং লাইসেন্স করার সময় আপনার কত টাকা জমা দিতে হবে তা নির্ভর করে আপনার গাড়ির উপর। পেশাদার এবং নন পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।

 অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি পূর্বে ছিল ২৫৪৫ টাকা। কিন্তু চলতি বছরে ১৬২০ টাকা বাড়ানো হয়েছে। তাহলে বর্তমানে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি হয়েছে ৪১৫৫ টাকা। অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মতো পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি ও বৃদ্ধি করা হয়েছে। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে ৭৫০ টাকা।

 তবে পূর্বে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি ছিল ১৬৮০ টাকা। বর্তমানে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফি হলো ২৪৩০ টাকা। তবে যানবাহন চালানোর জন্য শুধুমাত্র ড্রাইভিং লাইসেন্স বানালেই হবে না। নিরাপদে গাড়ি চালানোর জন্য আপনাকে গাড়ির বৈধতা তৈরি করতে হবে। সেজন্য রেজিস্ট্রেশন করা বাধ্যতামূলক। এক্ষেত্রে ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফি বৃদ্ধির মত রেজিস্ট্রেশন করার ফি ও বৃদ্ধি পেয়েছে।

শেষ কথা

পৃথিবীর সব দেশের মতো বাংলাদেশেও রাজপথে গাড়ি চালানোর জন্য অনুমতি পত্রের প্রয়োজন হয়। এই অনুমতি পত্রের নাম হল ড্রাইভিং লাইসেন্স। ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া এবং গাড়ির রেজিস্ট্রেশন ছাড়া রাস্তায় গাড়ি চালানো সম্পূর্ণ অবৈধ।

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে অবশ্যই নবায়ন করতে হবে। এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স হারিয়ে গেলে প্রতিলিপির জন্য যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আবেদন করতে হবে। মনে রাখবেন, ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হলে নানা ধরনের সমস্যা মোকাবেলা করতে হবে।

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। এমন সব বিষয়ে৷ জানতে আমাদের সাইটের অন্যন্য আর্টিকেল গুলো পড়তে পারেন।

Also Read : নতুন ভোটার আইডি কার্ড চেক

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents