Dreamy Media BD

অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম

মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম

মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম  পূরণ করার নিয়ম

মৃত্যু নিবন্ধন সনদটি কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। তবে আমাদের আশেপাশে এমন অনেকেই আছে যারা জানে না কিভাবে মৃত ব্যক্তির মৃত্যু নিবন্ধন সনদ পাওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হয়। এছাড়াও আবেদন ফরম পূরণ করার জন্য বেশ কিছু নিয়ম রয়েছে যা অনেকেরই অজানা। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন ২০০৪ মোতাবেক সকল নাগরিকের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন করানো একটি বাধ্যতামূলক বিষয়।

 ইতিমধ্যেই জন্ম নিবন্ধন ও মৃত্যু নিবন্ধন অনলাইন ভিত্তিক হয়ে গিয়েছে তাই কারো জন্ম নিবন্ধন এবং মৃত্যু নিবন্ধন অরিজিনাল কিনা তা সহজেই অনলাইনে সত্যায়িত করা যায়। পরিবারের সদস্যদের মধ্যে যে কেউ মৃত্যুবরণ করলে অবশ্যই সাথে সাথে তার মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা জরুরী। মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি হস্তান্তর এছাড়া যাবতীয় ওয়ারিশ এবং বিভিন্ন সরকারের ক্ষেত্রে মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদ একান্ত প্রয়োজন।

আজ এ আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনাদের জানাবো কিভাবে মৃত ব্যক্তির মৃত্যু নিবন্ধন করতে হয়। এবং মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য কি কি ডকুমেন্ট লাগে কিভাবে মৃত্যু সনদ অনলাইন করবেন বিস্তারিত সকল কিছু এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জানতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে আর্টিকেলটি পড়া শুরু করুন-

অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন করতে কি কি লাগে

যদি আপনি অনলাইনে মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদ আবেদন করতে যান তবে অবশ্যই মৃত ব্যক্তির জন্ম নিবন্ধনটিও অনলাইন হতে হবে। হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন দিয়ে অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করা সম্ভব হবে না। মৃত্যু নিবন্ধন অনলাইন ফরম করার জন্য আপনার যে সকল ডকুমেন্টের প্রয়োজন হবে তার তালিকা নিম্নে দেওয়া হল-

মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম 

১. সর্বপ্রথম প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টটি হল অনলাইন জন্ম নিবন্ধন। যদি মৃত ব্যক্তির জন্ম নিবন্ধনটি হাতে লেখা হয়ে থাকে তবে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদনের পূর্বে জন্ম নিবন্ধনটি অনলাইন করে নেওয়া প্রয়োজন।

২. যদি মৃত ব্যক্তি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করে থাকে তবে অবশ্যই ডাক্তার বা স্বাস্থ্য কর্মীদের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করতে হবে। এছাড়া যদি মৃত ব্যক্তি বাসায় স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করে থাকে সেক্ষেত্রে জানাযা সম্পূর্ণ করা ইমামের কাছ থেকে একটি প্রত্যয়নপত্র গ্রহণ করতে হবে। মৃত ব্যক্তি যদি মুসলমান ছাড়া অন্য ধর্মের হয়ে থাকে তবে মৃত ব্যক্তির সৎকার সম্পন্নকারী ব্যক্তির কাছ থেকে প্রত্যয়ন পত্র সংগ্রহ করতে হবে। মৃত ব্যক্তির মৃত্যু টি যদি অস্বাভাবিক হয় তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রয়োজন হবে। 

৩. মৃত ব্যক্তি নিজ বাসায় মৃত্যুবরণ করেছে কিনা অথবা বাসার বাইরে মৃত্যুবরণ করেছে কিনা তা সঠিকভাবে জানাতে হবে। অর্থাৎ মৃত্যুর স্থানটি উল্লেখ করতে হবে।

৪. মৃত ব্যক্তির বর্তমান অস্থায়ী ঠিকানা

৫. যে ব্যক্তি মৃত্যুর তথ্য প্রদান করছে তার জাতীয় পরিচয় পত্র কিংবা জন্ম নিবন্ধন।

অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করার নিয়ম

ইতিমধ্যেই আপনারা জেনে গিয়েছেন অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করতে কি কি ডকুমেন্টের প্রয়োজন। উক্ত ডকুমেন্টগুলো সব সঠিকভাবে থাকলে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসেই অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করতে পারবেন। তবে অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করার জন্য আপনাকে ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা কিংবা সিটি কর্পোরেশনের কার্যালয় আবেদন করতে হবে। মৃত্যু নিবন্ধন আপনি অনলাইনে আবেদন করলেও এটি আপনাকে গ্রহণ করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ বা ডিজিটাল সেবা সেন্টারে যোগাযোগ করতে হবে। চলুন এবার জেনে নিন কিভাবে অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করবেন।

ধাপ ১.

অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন করার জন্য অবশ্যই আপনাকে সর্বপ্রথম এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে । ওয়েবসাইটে ঢোকার পর আবেদন করার প্রথম ধাপেই আপনাকে মৃত ব্যক্তির অনলাইন জন্ম নিবন্ধন করা আছে কিনা তা অনুসন্ধান করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে মৃত ব্যক্তির জন্ম নিবন্ধন নাম্বার এবং জন্মতারিখের তথ্য প্রদান করতে হবে। তথ্যগুলো ঠিক থাকলে নির্বাচন করুন এই বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে যেতে হবে।

ধাপ ২. 

এবার নিবন্ধন এর দ্বিতীয় ধাপে এসে আপনাকে নিবন্ধন কার্যালয় বাছাই করতে হবে। এক্ষেত্রে মৃত ব্যক্তি যে পৌরসভা বা ইউনিয়নের বাসিন্দা সেই ঠিকানায় আপনাকে বাছাই করতে হবে। মৃত ব্যক্তি যদি পৌরসভার বাসিন্দা হয়ে থাকে তাহলে কাউন্সিলর কার্যালয় এবং কোন ইউনিয়নের বাসিন্দা হয়ে থাকলে ইউনিয়ন পরিষদ এভাবে ঠিকানা নির্ণয় করতে হবে। এবং নির্বাচন করা এই স্থান থেকেই আপনাকে মৃত্যূ সনদটি পরবর্তীতে সংগ্রহ করে নিতে হবে।

ধাপ ৩. 

এবার আবেদনের তৃতীয় পর্যায়ে মৃত্যুর উল্লেখযোগ্য কারণ এবং তারিখ উল্লেখ করতে হবে। এখানে মৃত্যুর কারণ নির্বাচনের জন্য অনেকগুলো অপশন রয়েছে। মৃত ব্যক্তির জন্য যে অপশনটি প্রযোজ্য সেটি বাছাই করতে হবে। এবং অপশনাল তথ্য হিসেবে মৃত ব্যক্তির স্ত্রী অথবা স্বামীর জন্ম নিবন্ধন নাম্বার কিংবা জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার যুক্ত করতে হতে পারে। এটা সম্পূর্ণই অপশনাল কেউ চাইলে না দিতেও পারে।

ধাপ ৪. 

এবার চতুর্থ ধাপে এসে মৃত ব্যক্তি যে স্থানে মৃত্যুবরণ করেছে সেই স্থানের একটি বিবরণ দিতে হবে। যেমন মৃত্যুর স্থানের বিভাগ, উপজেলা ইউনিয়ন, জেলা, গ্রামের নাম এবং বাসার নম্বরের তথ্য প্রদান করতে হবে। মৃত্যুর সময় মৃত ব্যক্তি যদি নিজ বাসাতেই মৃত্যুবরণ করে থাকে সেক্ষেত্রে মৃত্যুর সময়ের বসবাসের ঠিকানা এবং মৃত ব্যক্তির বাসার ঠিকানা উভয় ঠিকানা একই হবে। আর ঠিকানা যদি ভিন্ন হয় সে ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন ঠিকানা দিয়ে ফিলাপ করতে হবে।

ধাপ ৫.

মৃত ব্যক্তি মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য যে ব্যক্তি আবেদন করছে তার জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর অথবা জন্ম নিবন্ধন এর প্রয়োজন হবে। জন্ম নিবন্ধনটি অবশ্যই অনলাইন হতে। পাশাপাশি একটি সচল মোবাইল নম্বর যোগ করতে হবে। এছাড়া আপনি চাইলে ইমেইল এড্রেসও যুক্ত করতে পারেন। তবে ইমেইল এড্রেস যুক্ত করাটা সম্পূর্ণই অপশনাল। এবং আবেদনকারীর ঠিকানাও যুক্ত করতে হবে। এক্ষেত্রে বিভাগ, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ ও গ্রামের নাম দিয়ে সকল তথ্য পূরণ করতে হবে। এবং আবেদনকারীর সাথে মৃত ব্যক্তির কি সম্পর্ক তা বাছাই করতে হবে।

ধাপ ৬. 

এবার প্রধানকৃত সকল তথ্য সঠিক আছে কিনা তা আবার যাচাই করতে হবে। সম্পূর্ণ আবেদনের একটি বিবরণী আপনাকে দেখানো হবে। সকল তথ্য সঠিক থাকলে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে এবং আবেদনটি সম্পূর্ণ করতে হবে। যদি কোনরকম ভুল দেখতে পান তাহলে অবশ্যই আবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করে তথ্য সংশোধন করে নিতে হবে।

মৃত্যু সনদ ডাউনলোডের নিয়ম

মৃত্যু সনদের জন্য আবেদন করার পর আপনি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সনদপত্রটির সংগ্রহ করবেন। এবং এরপর চাইলে আপনি আপনার মোবাইলেও মৃত্যুর সনদটি ডাউনলোড করে রাখতে পারেন। মৃত্যুর সনদের অনলাইন কপি ডাউনলোডের জন্য আপনাকে কিছু ভাব অনুসরণ করতে হবে। নিবন্ধনের ১৭ সংখ্যার একটি নম্বর দেওয়া থাকবে। এবং অনলাইন কপি ডাউনলোড এর ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই এই সংখ্যাটি প্রয়োজন হবে। চলুন দেখে নিন কিভাবে মৃত্যু সনদ অনলাইন কপি ডাউনলোড করবেন-

১. সর্বপ্রথম সরকারি এই ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন।  Website 

২. এবার মৃত ব্যক্তির মৃত্যু নিবন্ধনের ১৭ সংখ্যার নম্বর এবং মৃত্যুর তারিখ দিয়ে আপনাকে একটি ক্যাপচা পূরণ করতে হবে। ক্যাপচা পূরণের পর সার্চ বাটনে ক্লিক করুন।

৩. সার্চ বাটনে ক্লিক করার পর আপনি মৃত ব্যক্তির অনলাইন মৃত্যুর সনদটি দেখতে পারবেন।

মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম

৪. এবার সেভ এস পিডিএফ অপশনে ক্লিক করে আপনি মৃত্যু সনদটি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

৫. পিডিএফ আকারে ডাউনলোড করার পর আপনি চাইলে প্রিন্টারের মাধ্যমে প্রিন্ট করে নিতে পারেন।

তবে অবশ্যই আপনি মনে রাখবেন কম্পিউটার থেকে আপনি অনলাইনে যে মৃত্যু সনদটি ডাউনলোড করছেন তা কিন্তু একেবারে অরজিনাল নয়। এটি মৃত্যু সনদের অনলাইন কপি। অনেক ক্ষেত্রে সরকারি কাগজপত্রের জন্য মৃত ব্যক্তির অরজিনাল মৃত্যু সনদের প্রয়োজন হয়ে থাকে। অরিজিনালটি আপনি কেবলমাত্র ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা পৌরসভা অফিস বা কাউন্সিলর কার্যালয় থেকেই সংগ্রহ করতে পারবেন। এবং মৃত্যুর সনদ ডাউনলোডের যে প্রসেসটি দেখানো হয়েছে তা আপনাকে অবশ্যই কম্পিউটারের মাধ্যমে করতে হবে। মোবাইলের মাধ্যমে মৃত্যুর সনদ অনলাইন কপি ডাউনলোড করা যাবে না।

মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের নিয়ম

ভুলক্রমেই অনেক সময় মৃত্যু নিবন্ধন সনদে ভুল হতে পারে। সেক্ষেত্রে চিন্তার কোন কারণ নেই এখন অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধন করা সম্ভব। মৃত ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ, মৃত্যুর স্থান, ও সময় যে কোন কিছুই ভুল হতে পারে। এবং এ সকল কিছুই আপনি সংশোধন করতে পারবেন। এখন আপনাদেরকে জানাবো কিভাবে মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধন করবেন-

মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের  আবেদন করতে কি কি লাগে:

মৃত ব্যক্তির মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের জন্য বেশ কিছু ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন। যেমন:

  • ১৭ সংখ্যার মৃত্যুর সনদ নাম্বার
  • মৃত্যুর তারিখ
  • মৃত্যু সনদ সংগ্রহের কার্যালয়ের ঠিকানা
  • সংশোধন তথ্যের প্রমাণ পত্র
  • খাজনা রশিদ
  • জন্ম তারিখ

মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের আবেদন করার নিয়ম:

১. মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের জন্য সর্বপ্রথম এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। এবার উপরের মেনু অংশ থেকে মৃত্যু নিবন্ধন তথ্য সংশোধন এই অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে।

২. এবার মৃত ব্যক্তির ১৭ সংখ্যার মৃত্যু নিবন্ধন নম্বর ও মৃত্যু তারিখ দিয়ে সামনে এগোতে হবে।

৩. এবার নিবন্ধিত কার্যালয়ের ঠিকানা বাছাই করতে হবে।

৪. তথ্যগুলো দেওয়ার পরে এবার আপনার সামনে একটি নতুন পেজ আসবে। এবং সেখানে মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের সীমাবদ্ধতা এবং কি কি তথ্য সংশোধন করা যাবে ও যাবে না তার তালিকা দেওয়া থাকবে।

৫. এবার আপনাকে ভুলগুলো সংশোধন করতে হবে। মৃত ব্যক্তির মৃত্যুর স্থানের নাম, মৃত্যু তারিখ, স্বামী স্ত্রীর সকল তথ্য পরিবর্তনের অপশন এখানে আপনি পেয়ে যাবেন।

৬. মৃত্যু সনদের ভুল তথ্য সংশোধনের কাজ সম্পন্ন করার পর এবার আবেদনকারীর কিছু তথ্য দেওয়ার প্রয়োজন হবে। যেমন সত্যতা যাচাইয়ের জন্য তার জন্ম নিবন্ধন কিংবা ভোটার আইডি কার্ড এর নম্বর।

৭. আবেদন ফরমটি সাবমিট করার আগে মৃত ব্যক্তির জমি কিংবা বাড়ির খাজনা রশিদ দেওয়ার প্রয়োজন হবে।

৮. আবেদনকারীর যাবতীয় তথ্য দেওয়ার পরে ফরমটি সাবমিট করতে হবে।

সংশোধিত মৃত্যু নিবন্ধন ডাউনলোডের নিয়ম

 অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন সংশোধনের আবেদনের সকল কাজ সম্পন্ন করার পর আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে নিবন্ধকের কার্যালয়ের অনুমোদনের জন্য। আবেদনের প্রায় ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্যেই সংশোধন করার ফরমটি সিটি অনুমোদন পেয়ে যায়। সংশোধনের কারণ যদি যথাযথ হয় তবে আরো আগে পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং আপনি আরো আগে সমত্রী সংগ্রহ করতে পারবেন। নিবন্ধন কার্যালয় থেকে মৃত্যু নিবন্ধন সনদটি সংশোধন করার পর আপনি চাইলে অনলাইন থেকে সংশোধিত মৃত্যু নিবন্ধন কপিটি ডাউনলোড করতে পারবেন। ক্ষেত্রে উপরের ডাউনলোডের ধাপগুলো অনুসরণ করলেই ডাউনলোড করা যাবে।

মৃত্যু সনদ যাচাইয়ের নিয়ম

জন্ম মৃত্যু আইন 2004 প্রণয়ন করার পরে এখন প্রত্যেক নাগরিকের জন্ম এবং মৃত্যু নিবন্ধন অনলাইন করা বাধ্যতামূলক হয়ে গিয়েছে। বর্তমান প্রযুক্তিগত উন্নয়নের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে। এখন আপনি যে কোন স্থানে বসেই আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়েই যে কারো জন্ম এবং মৃত্যু সনদ যাচাই করতে পারবেন। চলুন এবার জেনে নিন মৃত্যু সনদ যাচাই করার নিয়ম: 

অনলাইনে মৃত্যু সনদ যাচাই করার জন্য আপনার কয়েকটি ধাপ পেরোতে হবে। 

১. আপনাকে জন্ম এবং মৃত্যু নিবন্ধন সরকারি ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করতে হবে।

২. এবার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর মৃত ব্যক্তির মৃত্যু নিবন্ধনের ১৭ সংখ্যার নাম্বারটি বসাতে হবে। এবং মৃত্যুর তারিখ বাছাই করতে হবে।

৩. তারপর আপনার সামনে একটি ক্যাপচা আসবে এবং এই ক্যাপচাটি আপনাকে খালি ঘরে বসাতে হবে।

৪. সবকিছু সঠিকভাবে বসানোর পর আপনি সার্চ বাটনে ক্লিক করবেন।

৫. সার্চ বাটনে ক্লিক করার পরেই মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদটি যদি সঠিক হয় এবং অনলাইনে থেকে থাকে তা সাথে সাথেই সামনে চলে আসবে।

এভাবেই আপনি যে কারো মৃত্যু সনদ যাচাই করতে পারবেন।

মৃত্যু সনদ ফি কত?

যেকোনো ব্যক্তির মৃত্যুর পরে ৪৫ দিনের মধ্যে যদি অনলাইনে মৃত্যু নিবন্ধন করা হয় তাহলে কোন প্রকার ফি এর প্রয়োজন হবে না। বিনামূল্যে আবেদন সম্পন্ন করা যাবে। তবে মৃত্যুর ৪৫ দিন পর থেকে পাঁচ বছর সময়ের আগে আবেদন করলে সেক্ষেত্রে সনদ পেতে ২৫ টাকা সরকারি ফি প্রদান করতে হবে। পাঁচ বছরের বেশি হলে মৃত্যু সনদ গ্রহণ করতে সরকারি ফি ৫০ টাকা প্রদান করতে হবে।

সবশেষে,

আশা করি এই তথ্যবহুল আর্টিকেল থেকে আপনি উপকৃত হয়েছেন। মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদ পাওয়ার যাবতীয় সকল তথ্য প্রদান করার চেষ্টা করেছে। উক্ত উপায় গুলো অনুসরণ করলেই আপনি খুব সহজেই মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদ পেয়ে যেতে পারবেন। সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents