Dreamy Media BD

সাংহাই এর দর্শনীয় স্থান (Shanghai)

সাংহাই এর দর্শনীয় স্থান

গণচীনে অবস্থিত প্রদেশের সম মর্যাদাবিশিষ্ট ও সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারশাসিত চারটি পৌরসভার একটি হচ্ছে সাংহাই। মূলত শহরের জনসংখ্যার বিচারে এটি কেবল চীন নয়, বরং সমগ্র বিশ্বের বৃহত্তম একটি শহর। 

এটি একদিকে চীনের আর্থ-বাণিজ্যিক খাতের কেন্দ্রবিন্দু, অন্যদিকে অন্যতম বৃহৎ শিল্পোৎপাদন কেন্দ্ৰ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমুদ্রবন্দর। সাংহাই এমন একটি বিশ্বমানের শহরযেখানে  আন্তর্জাতিক বাণিজ্য, সংস্কৃতি, গণমাধ্যম, পোশাকশৈলী, প্রযুক্তি ও পরিবহনে এটি ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে আছে। এটি সমগ্র বিশ্বের অন্যতম একটি প্রধান আর্থ-বাণিজ্যিক কেন্দ্র। এছাড়া বর্তমানে উচ্চশিক্ষা ও বৈজ্ঞানিক গবেষণার ক্ষেত্রেও এটি চীনের অন্যতম একটি অগ্রগণ্য কেন্দ্ৰ।   

সাংহাইয়ে প্রতি বছর প্রায় ৬.৭ মিলিয়নের মতো দর্শক আসে ভ্রমণ করতে। বাঁধ এবং শহরের ঈশ্বরের মন্দির হচ্ছে পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। মূলত সাংহাইকে বলা হয় চীনের বাণিজ্যিক রাজধানী।  আধুনিকতা ও ইতিহাসের এক অসাধারণ মেলবন্ধন রয়েছে এ শহরে। সাংহাই শহরটি মূলত দুই ভাগে বিভক্ত। শহরের মাঝখানে বয়ে গেছে হাংপু নদী। এর একপাশে পুদং আর অন্যপাশে পুইশি। নদীর নিচ দিয়ে গেছে পাতাল সড়ক ও রেললাইন। এছাড়াও এর দিয়ে অপূর্ব ফেরি তো আছেই।

সাংহাইকে সবাই এশিয়ার নিউইয়র্ক বলে। এখানে আসলে আপনার বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের দেখা মিলবে। ইংরেজি ভাষাভাষী লোকের সংখ্যাও কিন্তু চীনের অন্যান্য প্রদেশের চেয়ে বেশি। সাংহাইয়ের দালানগুলো অনেক দৃষ্টিনন্দন। এর বেশুির ভাগ দালান ত্রিভুজাকৃতির কংক্রিটের ছাউনি দেওয়া। তবে দিনের চেয়ে রাতের সাংহাই দেখতে আরও অনেক সুন্দর। বয়ে যাওয়া হাংপু নদীর উপর দিয়ে ছোট নৌকায় ভ্রমণ-আপনাকে দেবে এক অসাধারণ অভিজ্ঞতা। এছাড়া নদীর ওপাশে পুদংয়ে দেখতে পাবেন বিশাল বিশাল দালান।

সাংহাইয়ে (Shanghai) পর্যটকদের জন্য রয়েছে অনেক আকর্ষণীয় স্থান। দ্য বুন্ড নামের নদীতীরস্থ পথচারীদের হাঁটার জন্যে রাস্তার উপরে রয়েছে উপনিবেশ আমলের বিভিন্ন ভবন সারি ধরে দাঁড়ানো। নদীর অপর তীরে শহরের ফুতুং এলাকার সুউচ্চ আধুনিক অট্টালিকার সসারিগুলো গঠন করেছে লুচিয়াৎসুই দিগন্ত রূপরেখাটি গঠন- যাকে গণ্য করা হয় মূল চীনা ভূখণ্ডের উদীয়মান অর্থনীতির একটি প্রদর্শনী হিসেবে।এদের মধ্যে ৬৩২ মিটার উঁচু সাংহাই টাওয়ার এবং তার সাথে ওরিয়েন্টাল পার্ল টেলিভিশন টাওয়ার সবচেয়ে চোখে পড়ার মত। বিশাল ইউ উদ্যানে আপনার সাথল ঐতিহ্যবাহী ঘর, মিনার ও পুষ্করিণীর দেখা মেলবে।  নানচিং সড়কটি কিন্তু বহুদিন ধরেই শহরের প্রধানতম কেনাকাটার জায়গা। এখানকার দোকানপাটগুলোও গভীর রাত অবদি আলোয় ঝলমল করে। এই সড়ক ধরে এগুলে জনতার উদ্যানে পৌঁছালে আপনার চোখে পড়বে সাংহাই জাদুঘর।

যেখানে খোদাইকরা জেড পাথর, চীনা হস্তলিপিশিল্প আর অন্যান্য শিল্পকলার বিভিন্ন নিদর্শন সংরক্ষিত আছে। লুংহুয়া মন্দিরটি পরিচিত মূলত স্থাপনা সমবায়টি সুং রাজবংশের শাসনামলে নির্মিত কারুকাজখচিত বৌদ্ধ প্যাগোডার জন্য। ফরাসি ছাড় নামের ছিটমহলটি পরিপূর্ণ বৃক্ষশোভিত রাস্তা, “আর দেকো” স্থাপত্য ঘরানার ভবন, আধুনিক দোকান, কফিঘর ও বারে।চীনের বৃহত্তম শহর সাংহাই ভ্রমণকারীদের জন্য অনেক অনেক আকর্ষণীয় দর্শনীয় স্থান দেখার সুযোগ দেয়। ২৪ মিলিয়নেরও বেশি জনসংখ্যা থাকা সত্ত্বেও, এই সর্বদা ব্যস্ত শহরটিতে রয়েছে অনেকগুলি নিরিবিলি ঐতিহাসিক জেলা এবং তার অনেকগুলো নতুন পর্যটন সাইট। 

এখানে করনীয়গুলোর মধ্যে রয়েছে শহরের বিশ্বমানের যাদুঘর এবং আর্ট গ্যালারী। যেমন সাংহাই মিউজিয়াম ও চায়না আর্ট মিউজিয়াম পরিদর্শন করা। এছাড়াও রয়েছে মনোরম বাগান এবং পার্ক অথবা কিছু কেনাকাটা করা, বিশেষ করে “নিউ ওয়ার্ল্ড” এর বিলাসবহুল বুটিক এবং গ্যালারী সহ পথচারী এলাকায়। চীনের এই সুন্দর শহর সাংহাই আপনার ভ্রমনের আনন্দ কে অন্য মাত্রায় বাড়িয়ে দিবে। প্রতি বছর বিভিন্ন দেশ থেকে এখানে পর্যটনকারীর সংখ্যা কিন্তু কম না। আর বাংলাদেশী তো রয়েছেই।

আমাদের এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনি সাংহাইয়ের দর্শনীয় স্থান ও ভ্রমন গাইড সম্পর্কে ধারনা দিবে।

বুন্ড
বুন্ড

১.বুন্ড

এটি পর্যটকদের মধ্যে বিশেষভাবে জনপ্রিয় একটি স্থান। এলাকাটি ইউরোপীয় একটি অনুভূতি ধরে রেখেছে। কারণ এখানে এক সময় শহরের আন্তর্জাতিক বসতির অবস্থান ছিল। এটি দিনে বা রাতে হাঁটার জন্য দুর্দান্ত একটি জায়গা। যেমন আপনি বুন্ডের 52টি অনন্য বিল্ডিংয়ে গেলে দেখবেন যা গথিক, রোমানেস্ক, নিওক্লাসিক্যাল, বারোক এবং রেনেসাঁর প্রভাব সহ বিভিন্ন শৈলীতে নির্মিত। নৌকায় চড়ে দর্শনীয় স্থান ভ্রমণের জন্য কিন্তু বুন্ড একটি দুর্দান্ত জায়গা। সাংহাই গিয়ে এ সুন্দর  স্থানটি ভ্রমন করে আসতে পারেন। 

২.ইউ গার্ডেন

১৫৫৯ সালে ইউ ইউয়ান জেলা, সাংহাই এর পুরানো শহর, চায়নাইউ গার্ডেন পুরানো শহরের উত্তর-পূর্ব দিকে স্থাপন করা হয়েছে চমৎকার ইউ গার্ডেন। সুখের উদ্যান নামেও পরিচিত এই বিশাল সবুজ ইউ গার্ডেন স্থানটি। ২০০০০বর্গ মিটারেরও বেশি এলাকা জুড়ে একটি বাইরের এবং একটি ভিতরের বাগান নিয়ে এটি গঠিত।

এই চিত্তাকর্ষক সুন্দর বিল্ডিংটি মূলত এর সুন্দর ছাদের অলঙ্কার, বেস-রিলিফের আলংকারিক উপস্থাপনা, এবং জানালা খোলার পাশাপাশি এর ড্রাগন-সজ্জিত দেয়ালের জন্য বিশেষভাবে  উল্লেখযোগ্য। ভ্রমনপ্রেমীদের জন্যে এটি খুব সুন্দর একটি স্থান।

জেড মন্দির
জেড মন্দির

৩.জেড মন্দির

সাংহাইয়ের আনুয়ান লু জেলায় অবস্থিত সুন্দর এই জেড বুদ্ধ মন্দিরে আপনি দেখতে পারবেন দুটি শাক্যমুনি। যা সন্ন্যাসী হুইগেন তার সাথে নিয়ে এসেছিলেন  বার্মা। ১৮৮২ সালে নির্মিত আসল মন্দির এর পরিবর্তে ১৯২৮ সালে নির্মিত বর্তমান ভবনটি তিনটি হল ও দুটি উঠানে বিভক্ত। সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক কাঠামোটি হচ্ছে জমকালো হল অফ দ্য কিংস অফ হেভেন (তিয়ান ওয়াং দিয়ান), চারটি স্বর্গীয় রাজার মূর্তি ও দুটি শাক্যমুনি ভাস্কর্যের জন্য উল্লেখযোগ্য। সাদা জেড থেকে খোদাই করা এই চিত্তাকর্ষক মূর্তিগুলির মধ্যে একটি ওয়েনটাং প্রধান হলের প্রায় দুই মিটার উঁচুতে দাঁড়িয়ে আছে, যেখানে বৌদ্ধ পাণ্ডুলিপির একটি সংগ্রহও রাখা হয়েছে (ছোট মূর্তিটি পশ্চিম প্রাঙ্গণে রয়েছে)। এখানেও দর্শনার্থীদের ভীড় জমে।

৪.সাংহাই মিউজিয়াম 

১৯৫২ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সাংহাই জাদুঘরটি চীনের শাস্ত্রীয় চীনা শিল্পের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যাদুঘর হিসাবে রয়ে গেছে। এটির অনন্য বৃত্তাকার শীর্ষ এবং বর্গাকার ভিত্তি পৃথিবীর ঐতিহ্যবাহী চীনা ধারণাগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে। যাদুঘরের চারটি তলায় প্রাগৈতিহাসিক সংস্কৃতি থেকে শুরু করে ১৯ শতক পর্যন্ত ব্রোঞ্জ এবং সিরামিকের চিত্তাকর্ষক প্রদর্শন রয়েছে৷

সংগ্রহের অন্যান্য হাইলাইটগুলির মধ্যে রয়েছে কালি আঁকা, ক্যালিগ্রাফি এবং সিল এবং সেইসাথে জাতিগত সংখ্যালঘুদের শিল্পের বড় সংগ্রহ। এটি জেড, কয়েন, মিং এবং কিং সময়কালের গৃহসজ্জার জিনিসপত্রের একটি বড় সংগ্রহ এবং একটি ভালো মজুত উপহারের দোকানের বাড়ি। এখানের সুন্দর জায়গাটি ভ্রমনের এক সুন্দর অভিজ্ঞতা দিবে।

৫.লংহুয়া মন্দির এবং প্যাগোডা

সাংহাইয়ের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে অবস্থিত একটি মনোরম অপূর্ব লংহুয়া মন্দিরটি চীনের প্রাচীনতম এবং ধর্মীয় স্থানগুলির মধ্যে একটি। ২৪২ খ্রিস্টাব্দের কাছাকাছি ৪০ মিটার লম্বা কাঠ ও ইটের প্যাগোডা সহ নির্মিত এই গুরুত্বপূর্ণ উপাসনালয়টি।  এটি কয়েক বছর ধরে বহুবার ধ্বংস করা হয়েছিল এবং পুনর্নির্মিত হয়েছিল। বর্তমানের এই কাঠামোটি ১০​​ম শতাব্দীর।

জায়গাটি নিয়মিত বৌদ্ধ অনুষ্ঠানের জন্য ব্যবহৃত হয় এখনও।  আর এটির বড় বুদ্ধ মূর্তি ও মৈত্রেয় হল (মাইল ডায়ান) সহ রয়েছে পাঁচটি বড় হল; স্বর্গীয় কিং হল (তিয়ান ওয়াং দিয়ান) টি চার স্বর্গীয় রাজাকে উৎসর্গ করা হয়েছে। আর রয়েছে গ্র্যান্ড হল অফ দ্য গ্রেট সেজ (ডাক্সিয়ং বাওডিয়ান), এর সূক্ষ্ম মূর্তি ও 16 শতকের একটি ঘণ্টা।

অন্যান্য হাইলাইটগুলির মধ্যে রয়েছে ১৩৮৪ সালের আরও পুরানো দুই মিটার লম্বা এবং পাঁচ টন বেল সহ বেল টাওয়ার -যেটি এখনও বিশেষ অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত হয়। পুরানো পাণ্ডুলিপি তার সাথে আনুষ্ঠানিক উপকরণ সহ লাইব্রেরি এবং প্রায় 500 স্বর্ণে আঁকা লুওহান বুদ্ধের চিত্তাকর্ষক দৃশ্য। এই দৃশ্যটি যে কোনো পর্যটকের নজর কাঁড়ার জন্যে যথেষ্ট। 

৬.ওরিয়েন্টাল পার্ল টাওয়ার 

সাংহাই-এ থাকাকালীন আপনি একটি ৪৬৮-মিটার লম্বা ওরিয়েন্টাল পার্ল রেডিও আর টিভি টাওয়ার (ডংফাং মিংঝুটা) দেখে আসতে পারেন। এটির অবস্থান হুয়াংহু নদীর পূর্ব তীরে পুডং-পার্কে। 

১৯৯১ সালে নির্মিত এ টাওয়ারটি বিভিন্ন আকারের ১১ টি সংযুক্ত গোলক থেকে এর নাম নিয়েছে।যার মধ্যে রয়েছে সর্বোচ্চ স্পেস মডিউল একটি কাচের মেঝেযুক্ত বাইরের ডেক সহ ৩৫০ মিটার চিহ্নে একটি পর্যবেক্ষণ স্তর। সকলকে বলা হয়েছে, টাওয়ারটিতে দেখার জন্য রয়েছে দর্শনীয় ফ্লোর এবং স্পেস সিটি সহ ১৫ জায়গা। তার পাশাপাশি রয়েছে দুর্দান্ত দৃশ্য সহ একটি ঘূর্ণায়মান রেস্তোরাঁ। এই রেস্তোরাঁয় গিয়ে এই সুন্দর  দৃশ্য উপভোগের সাথে খাবার খাওয়ার মজাই আলাদা।  

৭.পিপলস স্কোয়ার

পিপলস স্কোয়ার (রেনমিন গুয়াংচ্যাং) টি ধীরে ধীরে বছরের পর বছর ধরে সাংহাইয়ের প্রধান পাবলিক স্পেসে পরিনিত হয়েছে। নতুন সাংহাই সিটি অত্যাধুনিক গ্র্যান্ড থিয়েটারের বাড়ি শহর- ভ্রমণ শুরু করার জন্য একটি নিখুঁত সুন্দর জায়গা।

আপনি চাইলে চমৎকার সাংহাই আরবান প্ল্যানিং এক্সিবিশন সেন্টারে গিয়ে সময় কাটাতে পারেন। এখানে, আপনি পাবেন চমৎকার প্রদর্শন এবং মডেলগুলো। এমনকি এখানে একটি ৩৬০ ডিগ্রি মুভি থিয়েটার ও পরিকল্পিত বিল্ডিং উভয়ই দেখায়৷ এই আধুনিক মহানগরের একটি আকর্ষণীয় ভিউ আপনি উপরের গ্যালারী থেকে পাখির চোখে দেখতে এই বিশাল স্কেল-মডেলটি দেখতে ভুলবেন না।

৮.তিয়ানজিফাং

তিয়ানজিফাং হচ্ছে একটি আকর্ষণীয় চারু ও কারুশিল্পের গন্তব্য। যদিও এখানে অনেক পুরোনো বাড়ি ও বিল্ডিং প্রতিস্থাপিত হয়েছে। এই পুরানো ইউরোপীয় জেলার চরিত্রটি এর স্থাপত্য আর বিন্যাসে সংরক্ষিত হয়েছে যত্ন সহকারে। এর অসংখ্য ছোট ছোট গলিপথ ও গলিগুলো ও দেখার মতো জায়গা।

অনেক কেনাকাটার সুযোগ ছাড়াও, এটি শহরের অন্য কোথাও পাওয়া বড় দোকানগুলোর পরিবর্তে অসংখ্য ছোট গ্যালারী ও কারুশিল্পের দোকানগুলো নিয়ে গঠিত। এটির অনেক রেস্তোরাঁ আবার ঐতিহ্যবাহী ভাড়া পরিবেশন করার কারণে আর এটির অসংখ্য ক্যাফেগুলোর কারণে এটি রাতে দেখার জন্য একটি খুবই মজার জায়গা। 

৮. জুজিয়াহুই ক্যাথেড্রাল এবং শেশান ব্যাসিলিকা

১৯১১ সালে নিও-রোমানেস্ক শৈলীতে নির্মিত এই জুজিয়াহুই ক্যাথেড্রাল যেটি সেন্ট ইগনাটিয়াস ক্যাথেড্রাল নামেও পরিচিত। এটি সাংহাইয়ের সমৃদ্ধ বহু-জাতীয় ঐতিহ্যের আরো একটি দুর্দান্ত অনুস্মারক। জুজিয়াহুই এর দক্ষিণের শহর জেলায় এটি সাংহাইতে রোমান ক্যাথলিক উপাসনার বৃহত্তম স্থান। আর এর অপূর্ব পার্কের মতো স্থাপনা ছাড়াও এর ৫০ মিটার উচ্চ বেল টাওয়ার ও সূক্ষ্ম দাগ দিয়ে পুনরুদ্ধার করা অভ্যন্তরটির জন্য এটি দেখার মতো সুন্দর। 

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থান হচ্ছে শেশান ব্যাসিলিকা (আওয়ার লেডি অফ শেশানের জাতীয় মন্দির ও মাইনর ব্যাসিলিকা)। এই সূক্ষ্ম পুরানো রোমান ক্যাথলিক গির্জাটি দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ের পশ্চিম চূড়ায়, যার নামানুসারে এটির নামকরণ করা হয়েছে। অন্যান্য অনেক ধর্মীয় স্থানের মতোই এটি চীনা সাংস্কৃতিক বিপ্লবের সময় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল ব্যাপকভাবে।

কিন্তু বছরগুলোতে ব্যাপক সংস্কার করা হয়েছে। আর  এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান হিসাবে এখনও রয়ে গেছে। একটি দর্শনের একটি হাইলাইট হচ্ছে ১৪টি স্টেশন অফ দ্য ক্রস অনুসরণ করা। যা পাহাড় থেকে গির্জা পর্যন্ত একদম জিগজ্যাগ করে পথের সাথে অনেক চমৎকার সুন্দর দৃশ্যের সাথে। আপনি এখানে অনেক অভিজ্ঞতার সাথে উপভোগ্য দৃশ্যের আনন্দ পাবেন।

৯.সাংহাই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি যাদুঘর 

২০০১ সালে প্রতিষ্ঠিত এই যাদুঘরটি দেখতে অথবা ভ্রমন করার জন্য অসংখ্য পর্যটকরা পাড়ি জমান। যার মধ্যে রয়েছে ইন্টারেক্টিভ মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শনী, স্থায়ী প্রদর্শন এবং অত্যাধুনিক বিজ্ঞান থিয়েটার। হাইলাইটগুলোর মধ্যে রয়েছে এই অঞ্চলের স্থানীয় প্রাণীদের একটি বৃহৎ সংগ্রহ, বৈজ্ঞানিক সাফল্য, রোবোটিক্সের একটি আকর্ষণীয় প্রদর্শনী। আর, সেইসাথে এখানে আপনি দেখতে পাবেন মহাকাশ ভ্রমণের উপর ফোকাস করা প্রদর্শনী।

চীন আর্ট মিউজিয়াম
চীন আর্ট মিউজিয়াম

১০.চীন আর্ট মিউজিয়াম

এটি দেশের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ আধুনিক শিল্পের সংগ্রহের আবাসস্থল। যেটি অবস্থিত প্যালেভিয়ানে। উল্লেখযোগ্য সাংহাই গ্র্যান্ড থিয়েটার, নিয়মিত কনসার্ট, অপেরা, ব্যালে পারফরম্যান্স এবং ঐতিহ্যবাহী থিয়েটারের জন্য বেশ সুপরিচিত।

১১.সাংহাইন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম

যাদুঘরের দর্শকরা সাংহাই ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম দেখার সুযোগ সাধারণত হাতছাড়া করতে চাইবেন না। আপনি এখানে ২৪০,০০০ -এরও বেশি নিদর্শনগুলোর একটি বিশাল সংগ্রহ দেখার সুযোগ পাবেন।

যার মধ্যে অনেকগুলো হচ্ছে চীনের জন্য অনন্য ও বিরল প্রাণী এবং উদ্ভিদের নমুনাগুলোর সবকিছু সহ, কিছু 140 মিলিয়ন বছর আগেকার (এখানে রয়েছে একটি বিরল ডাইনোসর) কঙ্কাল, যা দাঁড়িয়ে আছে চারতলা উঁচুতে। এছাড়াও এখানে রয়েছে দেখতে মজার মজার অনেকগুলো বড় অ্যানিমেট্রনিক ডাইনোসর,যেগুলো এই বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীদের আকার, শক্তি ও চেহারা সম্পর্কে একটি সুন্দর ধারণা প্রদান করে।

১২. নানজিং 

বুন্ড, জিং’আন মন্দির এবং পশ্চিম ইয়ান’ন স্ট্রিটের মধ্যে অবস্থিত এই নানজিং। চীনের এই প্রিমিয়ার শপিং স্ট্রিটটি ফ্যাশন খোঁজা ক্রেতাদের জন্য কিন্তু সাংহাইয়ের অন্যতম একটি শীর্ষ পর্যটন আকর্ষণ। আপনি এখানে অনেক প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী খাবারের দোকান খুঁজে পাবেন। যেগুলো আপনাকে উপভোগ করাবে খাঁটি সাংহাই খাবারের স্বাদ।

১৩. হাইচাং ওশান পার্ক

এখন পর্যন্ত চীনে নির্মিত সেরা মহাসাগর-থিমযুক্ত পার্ক হচ্ছে পূর্ব চীন সাগর উপকূলে অবস্থিত। সাংহাই হাইচাং ওশান পার্কটি। এই পার্কটি মূলত 5টি প্রধান থিমে বিভক্ত। এখানে আপনি বিস্ময়কর প্রাণী শো, অসাধারণ অ্যাডভেঞ্চার ও পশু-থিমযুক্ত 5-তারকা হোটেল কক্ষ উপভোগ করতে পারবেন। পার্কের ছাদটি কিন্তু চারপাশের ল্যান্ডস্কেপের একটি প্যানোরামিক 360-ডিগ্রি ভিউ দেয়।

১৪.সাংহাই সার্কাস ওয়ার্ল্ড 

সাংহাইতে দেখার মতো অনন্য স্থান হচ্ছে সাংহাই সার্কাস ওয়ার্ল্ড এবং এটিকে বিবেচনা করা হয় ‘চীনের 1 নম্বর সার্কাস ওয়ার্ল্ড’ হিসাবে। এখানে উন্নত আলো, মঞ্চ সুবিধা এবং শব্দ সরঞ্জাম সহ অনেক আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সার্কাস প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়।

১৫.সাংহাই চিড়িয়াখানা 

পূর্বে ওয়েস্টার্ন সাবারবান পার্ক নামে পরিচিত এই সাংহাই চিড়িয়াখানাটির অবস্থান হংকিয়াও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে। এখানে আপনি দেখতে পাবেেন প্রায় 600 বিরল প্রাণী সহ 6000 প্রজাতির প্রাণী। শুধুমাত্র চীনে পাওয়া প্রাণী যেমন সোনালী বানর, দৈত্য পান্ডা,দক্ষিণ চীনের বাঘ,মাঞ্চুরিয়ান বাঘ, এলক এবং ইয়াংজি অ্যালিগেটর দেখতে পাবেন।

সাংহাইয়ের সবচেয়ে সুন্দর স্থানগুলির মধ্যে এই চিড়িয়াখানাটি একটি এবং এতে প্রাইমেট, মাংসাশী, পাখি, তৃণভোজি এবং উভচরদের মধ্যে বিভক্ত 5টি প্রদর্শনী এলাকা রয়েছে। 

১৬.সাংহাই মহাসাগর অ্যাকোয়ারিয়াম সাংহাই চীন

এই অ্যাকোয়ারিয়ামটির অবস্থান পুডং জেলার ওরিয়েন্টাল পার্ল টাওয়ার এবং জিন মাও টাওয়ারের মধ্যে । এটিতে রয়েছে বিশ্বের দীর্ঘতম সাবমেরিন দেখার সুড়ঙ্গ যা সাংহাইয়ের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন স্থান বানিয়েছে এটিকে।

এখানে আপনি ঘুরে ঘুরে জাদুঘরের পিরামিড-আকৃতির বিল্ডিং ও একটি উপহারের দোকান এবং একটি চমৎকার রেস্টুরেন্ট সহ একটি বিশাল প্রদর্শনী এলাকা ঘুরে দেখতে পারবেন। এটি বিশ্বের একমাত্র অ্যাকোয়ারিয়াম যেখানে পাবেন একটি চীন অঞ্চল, যেখানে জলজ জীব ও তাদের ইয়াংজি উপত্যকার বাস্তুসংস্থান রয়েছে। আর প্রদর্শন করা হয়েছে চীনের বিপন্ন জলজ প্রজাতি।

লোকেশন: বেইজিং থেকে সাংহাই এর দূরত্ব ১২১৪.১ কিলোমিটার।  

কিভাবে যাবেন: ঢাকা থেকে আকাশ পথে বেইজিং গিয়ে বুলেট ট্রেনে সাংহাই যাওয়া যায়।

ইতিকথা, সাংহাই ভ্রমন আপনার জন্যে একটি সুন্দর ও নতুন অভিজ্ঞতা হবে। এর প্রাচীন বা ঐতিহাসিক অথবা আধুনিক, প্রত্যেকটি দর্শনীয় স্থান কিন্তু দেখার মতো সুন্দর। যা আপনাকে মুগ্ধ  করবেই। এখানে এসে আপনি পরিচ্ছন্নতা আজায় রাখবেন এবং যেখানে সেখানে ময়লা ফেলবেন না। সকল ভ্রমন জটিলতা কাটিয়ে আপনার ভ্রমন হোক নিরাপদ ও নির্ঝঞ্জাট। 

আরো পড়ুন –

 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents