Dreamy Media BD

নিকলী হাওর : ভ্রমন টিপস এবং খরচ 

nikli

নিকলী হাওর সত্যিই আশ্চর্যজনক একটি স্থান।  যে প্রকৃতিতে কিছু সময়ের জন্য হারিয়ে যেতে মন চাইবে। আপনি যদি দ্বি-জলে ভ্রমণ করতে আগ্রহী হন তবে অবশ্যই নিকলী হাওরের দিকে যেতে পারেন। নিকলী হাওর কিশোরগঞ্জ জেলার অন্তর্গত নিকলী উপজেলায় অবস্থিত। কিশোরগঞ্জ সদর থেকে নিকলী উপজেলার মধ্যে এর দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। 

এখানে গেলে দেখতে পাবেন মাথার উপর দিয়ে একটা সাদা মেঘের দল যাচ্ছে আর স্বচ্ছ পানিতে ভেসে বেড়াচ্ছে নানান ধরনের জলজ উদ্ভিদ। অন্য দিকে জেলেদের জীবন কাহিনী আর দিগন্ত বিস্তৃত জলের ওপর রোদের খেলা। যা এক নিমিষেই মন কাড়ে

এটি মূলত একটি প্রাচীন শহর এলাকা। মেথামোইন নামেও পরিচিত এই এলাকাটি। তাছাড়া লোকমুখে প্রচলিত অনেকগুলি উচ্চারিত শব্দ আছে যেমন, মিথামোইন, মিটামন ইত্যাদি। 

আরো পড়ুন  – যশোর জেলার দর্শনীয় স্থান

নিকলী হাওরের সৌন্দর্য 

এটি একটি ছোট শহর যা সাগরের স্বচ্ছ জলে ভাসমান দ্বীপ হিসাবে দেখা যায় এবং মাছ ধরার জন্য জেলেদের আবেশপূর্ন স্থান হাওরটি। যেমন রাতারকুলের সাথে তাজা এবং সুস্বাদু হাওর এর সুবর্ন পরিবেশ। আপনি যদি সৌন্দর্যের সবকিছু অনুভব করতে চান তবে নিকলীর আশ্চর্যজনক হাওর ভ্রমণ থাকবে আপনার স্মৃতি হয়ে। অপরূপ প্রাকৃতিক দৃশ্যের সাথে তরতাজা মাছে পরিপূর্ণ এই নিকলী হাওরটি

সারাদিনের ব্যস্ত সময় কাটে সেখানকার জেলেদের। সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ এর সাথে, বড় ছোট বাহারী ধরনের মাছের সাথী যেন তাদের জীবনকাল বহমান। কিশোরগঞ্জের প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের সাথে সৌন্দর্যে ভরপুর পুরো দেশের কাছে বিখ্যাত জায়গাটি নিকলী হাওর। মাঝিদের অথৈ জলে জলাবনে মাছ ধরার দৃশ্য দেখে নিজেকে হারিয়ে ফেলতে চাইবেন ঐ প্রকৃতির মাঝে

হাওর-বাঁওড়, নদী, সমতল, উপত্যকার বৈচিত্র্যময় ভৌগোলিক প্রকৃতির বিস্তীর্ণ জেলা কিশোরগঞ্জের রূপ নিতে দেশ-বিদেশ থেকে পর্যটকরা এখানে ঘুরতে আসেন। নিকলী হাওর, অষ্টগ্রাম, ইটনা হাওরের পাশাপাশি এখানকার আরেকটি উল্লেখযোগ্য হাওর হল মিঠমইন হাওর। যা মিঠামইন উপজেলায় অবস্থিত রয়েছে। 

মিঠাইনের উত্তরে ইটনা ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণে অষ্টগ্রাম উপজেলা, পূর্বে বানিয়াচং ও অষ্টগ্রাম, পশ্চিমে করিমগঞ্জ ও নিকলী উপজেলা। যতদূর চোখ যাবে এই হাওরে শুধু পানি আর পানিই চোখে পড়বে। নীল আকাশের কালো সাদা মেঘগুলি জ্বলজ্বল করে, এবং অবিরাম জলে তার প্রতিবিম্ব ভেসে উঠছে। আপনি দিগন্তের তীরে এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য এবং ছোট ছোট  গ্রাম দেখতে পাবেন। যা দেখলে মনে হবে আপনি এক স্বপ্নে গ্রামে অবস্থান করছেন

নিকলী হাওর দেখার উপযুক্ত সময়

নিকলী হাওর এর আশেপাশের জলাশয়, দ্বীপের মতো জলে ভেসে থাকা গ্রাম, মাছ ধরার নৌকায় ব্যস্ত জেলেদের এবং ছোট জলাভূমি এলাকাগুলির দ্বারা আলাদা করা হয়। হাওরের মিঠা পানিতে নৌকায় চড়লে মনে হবে পানির স্বর্গে ঘুরে বেড়ানো। এই জলাভূমির প্রশান্তি আপনার মন থেকে শহরের সমস্ত ক্লান্তি দূর করার জন্য যথেষ্ট। কিশোরগঞ্জ জেলার নিকলী, মিঠামিন, ইটনা ও অষ্টগ্রাম এই চারটি উপজেলাকে সংযুক্ত করার পথটি এক অনন্য সৌন্দর্য প্রদর্শন করে। 

বর্ষাকালে রাস্তার দুই পাশে পানি থাকে আর যতদূর চোখ যায় শুধু হাওরের পানি। আপনি যদি হাওরের অভ্যন্তরে জলের আকার দেখতে চান তবে বৃষ্টির মৌসুমের পরে যাওয়া আপনার জন্য ভালো হবে। সুতরাং, নিকলীতে যাওয়ার আদর্শ সময় হল জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে। সেপ্টেম্বরে অবশ্য পানির স্তর কম থাকে। তাছাড়া আপনি বছরের যে কোন সময় হাওরের যেকোন এলাকা পরিদর্শন করতে পারবেন

এই সৌন্দর্যপূর্ণ হাওরে আবার অনেক মানুষের হাঁস পালন করে জীবিকা নির্বাহ করে। চারিদিকে জাল দিয়ে বেরীবাঁধ করে মধ্যখানে হাঁস পালন করা হয়। বিভিন্ন ধরনের নৌকা বা ট্রলার দিয়েও জেলেরা মাছ ধরেন। সেপ্টেম্বরের দিকে গেলে এখানে পানির পরিমাণ কিছুটা কম থাকে। যার কারনে সেই সময়টা ঘোরাফেরার জন্য উপযুক্ত এবং বিপদজনক কোন আশঙ্কাও নেই। 

নিকলী হাওরে গিয়ে কোথায় খাবেন এবং কী খাবেন?

নিকলী যে এলাকায় অবতরণ করছে সেখানে কয়েকটি শীর্ষস্থানীয় খাদ্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে হোটেল ব্রিজ এবং ক্যাফে ওয়েভ সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। হাওর থেকে ১০০ থেকে ২০০ টাকায় তাজা মাছ কেনা যায়। বিভিন্ন জাতের এবং বিভিন্ন ধরনের সুস্বাদু মাছ পাওয়া যায়। 

এখানে প্রতিটা রেস্টুরেন্ট বা হোটেলের মধ্যে আপনি সব ধরনের সুস্বাদু টেংরা মাছ, বাইম মাছ সাথে আরো বিভিন্ন জাতের তাজা মাছ পাবেন। তার সাথে রয়েছে মুরগি, গরু, খাসির মাংস। সাথে পাবেন সালাত, ড্রিঙ্কস, মিনারেল ওয়াটার। অন্যতম সুস্বাদু একটি খাবার যা সব পর্যটকদের খুবই পছন্দের তা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের চাটনি বা বিভিন্ন জাতের মাছের ভর্তা। 

নিকলীর আশেপাশের হোটেলগুলো তেমন একটা উন্নত মানের নয়, কিন্তু প্রতিটা হোটেলের খাবার গুলো খুবই সুস্বাদু এবং খাবার এতটা জনপ্রিয় হওয়ার কারণ এখানকার তাজা মাছ এবং মেনুতে থাকা বিভিন্ন ধরনের ভর্তা রেসিপি। ঘুরতে আসা প্রতিটা পর্যটকেরই মন ছুঁয়ে যায় এখানকার তাজা মাছ এবং বিভিন্ন ধরনের ভর্তা রেসিপি। 

নিকলী বাজারে অবশ্যই আপনি হাওর থেকে সদ্য ধরা মাছের স্বাদ নিতে ভুলবেন না। এবং তার সাথে  মিঠামইন অষ্টগ্রাম রোডে ভ্রমণের সময় আপনি অষ্টগ্রাম পনিরের স্বাদও নিতে পারেন। বাংলাদেশের সেরা মানের পনির এখানে পাওয়া যায়। 

তবে আপনাকে স্থানীয় পনির বিক্রেতাদের জানাতে হবে যে পরিমাণ পরিমাণ আপনি কিনতে চান অন্তত এক বা দুই দিন আগে। তাছাড়া শীতকালে সেখানে ১০ ইঞ্চি লম্বা মুরালিও রয়েছে খুবই জনপ্রিয়। 

নিকলী

নিকলী হাওরে কিভাবে যাবেন 

নিকলী হাওর যেন প্রাকৃতিক অপরুপ সৌন্দর্যে ঘেরা দেয়া একটি শান্তিপূর্ণ হাওর জায়গা। ঢাকার পাশাপাশি কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে একদিনেই নিকলী হাওর পরিদর্শন করতে পারবেন। ঢাকা থেকে আপনি ট্রেন বা বাসে নিকলী হাওর সহজেই পৌঁছাতে পারেন। তাছাড়া এখানে মোটরসাইকেল ও যাতায়াত করতে পারবেন। 

ট্রলারের মাধ্যমে মোটরসাইকেল এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেওয়া যায় কিন্তু অন্য ধরনের কোন গাড়ি নেওয়া তো সম্ভব নয়। তাই ভ্রমণে আসার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন মোটরসাইকেল হলে সাথে আসতে পারবেন অন্যথায় প্রাইভেট গাড়ি না এনে অন্য কোন ট্রেন বা বাসে যাতায়াত করবেন। ঘোরাফেরার জন্য ট্রলার ভাড়া করে নিবেন এবং অবশ্যই আগে দরদাম করে নিতে ভুলবেন না। 

এছাড়া সংক্ষিপ্তভাবে বললে সকাল ৮টায় ঢাকা থেকে বের হলে  দুপুর ১২টার মধ্যে নিকলী বেরিবাদে পৌঁছাতে পারবেন। নিকলী বেরিবাদ থেকে আপনি আপনার নৌকা যাত্রার জন্য প্রস্তুতি নিবেন। নিকলী হাওর থেকে আপনি বহিরাগত ছাতির চরের জলাভূমি বনে চড়ে যাবেন

এখানে আপনি আকাশী জলে ঘেরা একটি শ্বাসরুদ্ধকর, সবুজ দ্বীপের এক ঝলক দেখতে পাবেন। দ্বীপে আপনার আগমনের পরে, আপনি এর অত্যাশ্চর্য জাঁকজমক দ্বারা বিমোহিত হবেন এবং মন্ত্রমুগ্ধ স্বর্গ ছেড়ে যেতে দ্বিধাগ্রস্ত হবেন। বিকাল ২টার দিকে আপনি চাইলে একটি স্থানীয় রেস্টুরেন্টে লাঞ্চ করে নিতে পারেন। সন্ধ্যা ৬টায় অভিযান শেষ করে ঢাকায় ফিরতে পারবেন

নিকলী হাওরে বোর্ড/নৌকা ভাড়া 

একটি ছোট নৌকা ভাড়া করতে ঘণ্টায় ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা এবং বড় নৌকা ভাড়া করতে প্রতি ঘণ্টা ৭০০ থেকে ৮০০  টাকা খরচ হবে। দীর্ঘ সময়ের জন্য নৌকা ভাড়া একটু কম হবে। 

একটি নৌকা সহজেই ১০ থেকে ৩০ জন লোক বহন করতে পারে। যতদিন সময় আছে নৌকা ভাড়া করুন। হাওয়ায় নৌকা ভাসিয়ে দেখে যেতে পারেন ছাতিচর গ্রামের মনোমুগ্ধকর পরিবেশ উপভোগ করতে। নিকলীর জলাবদ্ধতার সৌন্দর্য প্রকাশিত হয় এবং এখানে পানির মোহনীয়তা দেখার পাশাপাশি ঠাণ্ডা পানিতে ডুবিয়ে শরীর ঠাণ্ডা করতে পারবেন

ঢাকা থেকে ট্রেনে কিশোরগঞ্জ

ঢাকা থেকে ট্রেনে করে কিশোরগঞ্জ পৌঁছানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে, আপনি যদি ঢাকা থেকে ভ্রমণ করতে চান এবং একদিনে সমস্ত কিছু দেখতে চান। তাহলে আপনার একটি ইন্টারসিটি ১১ ইন্ডাস ভোরের ট্রেন ব্যবহার করতে হবে। ট্রেনটি বুধবার সকাল ১১টায় বাদে বাকি সাত সপ্তাহে সকাল ৮.১৫ মিনিটে কমলাপুর স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়। 

এবং সেখানে বিমানবন্দর, টঙ্গী, নরসিংদী এবং ভৈরব স্টেশন হয়ে কিশোরগঞ্জে পৌঁছায়। ট্রেনের টিকিটের রেঞ্জ ক্লাসের ভিত্তিতে ১৫০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যে। আপনি যদি ট্রেনে ভ্রমণ করেন তাহলে কিশোরগঞ্জ সদরে পৌঁছানোর আগে গাছিহাটা স্টেশনে একটি চক্কর দিয়ে যাওয়া আদর্শ হবে। ঢাকা থেকে ট্রেনে রওনা হলে সকাল ১১টার আগেই গচিহাটা স্টেশনে পৌঁছানো সম্ভব। সেখান থেকে ইজিবাইক ও সিএনজির মাধ্যমে ১৫ কিলোমিটার দূরে নিকলী বাজারে যাওয়া যায়। 

ইজি বাইকে একজনের জন্য ৩৫ টাকা লাগবে এবং আপনি যদি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা রিজার্ভ করেন। তাহলে নিকলী যেতে প্রায় এক ঘণ্টা সময় লাগবে। আপনি যদি সিএনজি রিজার্ভ করে নিতে চান, তাহলে দাম ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকার মধ্যে পড়বে। এটি প্রায় ৪০ মিনিটের মতো সময় নেয়। আপনি যদি পরের দিন ফেরার পরিকল্পনা করেন তবে অবশ্যই আপনাকে আপনার রুটে একটি বাস ধরতে হবে

ঢাকা থেকে বাসে কিশোরগঞ্জ যাওয়ার উপায়

ঢাকা থেকে বাসে আসতে হলে আপনাকে ঢাকার গোলাপবাগ থেকে যেতে হবে। অথবা অনন্যা সুপার বাস সার্ভিসে আসতে হবে। প্রতিদিন ভোর সাড়ে ৫টা থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে বাস ছেড়ে যায়। বাস ভাড়া পড়বে জনপ্রতি ১৯০ থেকে ২২০ টাকা। রাতে ফিরতে হলে সকাল ৮টার আগে বাসে উঠতে হবে

কিশোরগঞ্জের আগে কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে বাস থেকে নামলে ভালো হবে। ঢাকা থেকে কটিয়াদী যেতে সময় লাগবে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘণ্টা। কটিয়াদি থেকে নিকলী যাবার জন্য সিএনজি পাবেন। সেখান থেকে ২২ কিমি দূরে নিকলী যেতে আপনাকে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায় সিএনজি রিজার্ভ করতে হবে। অথবা লোকালেও যেতে পারবেন ভাড়া পড়বে জনপ্রতি ৮০ টাকা। এবং যেতে প্রায় ১ ঘন্টা ২০ মিনিট সময় লাগবে

কিশোরগঞ্জ থেকে নিকলী

কিশোরগঞ্জ থেকে নিকলী যাবেন,কিশোরগঞ্জ শহর হয়ে নিকলীর দিকে যেতে, কিশোরগঞ্জ ট্রেন স্টেশনের কাছে অবস্থিত সিএনজি স্টেশনে যেতে হবে। কিশোরগঞ্জ সদর থেকে নিকলী পর্যন্ত প্রায় ২৬ কিলোমিটার। সিএনজি স্টেশন থেকে স্থানীয়ভাবে বা রিজার্ভের মাধ্যমে ভ্রমণ করতে প্রায় ১ ঘন্টা সময় লাগবে। লোকাল যেতে চাইলে জনপ্রতি ভাড়া ৬০ টাকা, আর সিএনজি রিজার্ভ নিতে পারবেন ৩৫০-৪০০ টাকায়

ভৈরব থেকে নিকলী

আপনি চাইলে লোকাল বা রিজার্ভ সিএনজি ব্যবহার করে ভৈরব থেকে নিকলীর দিকে ট্রিপ নিতে পারেন। লোকাল রেটে জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ১২০ টাকা, এবং রিজার্ভ খরচ আসবে ৬০০ টাকা। ভৈরব থেকে সিএনজিতে যেতে প্রায় এক ঘণ্টা সময় লাগবে

নিকলী পৌঁছানোর পরে, নিকলী হাওর পরিদর্শনের উপযুক্ত সময় হবে বিকেল বেলা। তখন খাওয়া দাওয়া ও অন্যান্য কাজ সেরে বেড়িবাঁধের শেষ প্রান্তে আসা। সেখানে আপনি হাওরে ভ্রমণের জন্য রওনা হওয়ার জন্য ঘন্টায় একটি নৌকা পাবেন। 

নিকলী হাওর রিসোর্ট  

কয়েকটি ভালো মানের রিসোর্ট ও গেস্ট হাউস রয়েছে নিকলী হাওরে। যেগুলো সম্প্রতি চালু হয়েছে। তাছাড়া উপজেলা ডাক বাংলোতে স্বল্প খরচে থাকার সুব্যবস্থা রয়েছে। এই ক্ষেত্রে, আপনাকে আগে থেকে বাংলো কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে হবে

আবার, কিশোরগঞ্জ জেলায় কিছু ভালো মানের বেসরকারি হোটেলও রয়েছে। তাছাড়াও বেশ কিছু ভালো মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। 

তাছাড়া রাত্রী যাপনে আপনি চাইলে কিশোরগঞ্জ শহরে যেতে পারেন। এখানে ভালো মানের হোটেল আছে। এর মধ্যে হোটেল গাংচিল, হোটেল শ্রাবণী এবং হোটেল আল-মুসলিম অন্যতম। এসব হোটেলে আপনি প্রতি রাতে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে রুম পাবেন

নিকলী-প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট

প্রায় ৩৫ একর জমির উপর গড়ে উঠেছে এই রিসোর্ট। অত্যধুনিক ডিজাইনের তৈরি হয়েছে রিসোর্টটি। সেই সাথে রয়েছে প্রাকৃতিক সবুজে ঘেরা সৌন্দর্য। 

এর ভিতরে রয়েছে ৩ স্টার মানের ১০টি কটেজ। এর ভিতরে ৪০টি পরিবার স্বাচ্ছন্দ্যে থাকতে পারবেন। রুম থেকে হাওরের পুরু সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন

এখানে যা পাবেন:

  • আউটডোর পার্টি সেন্টার 
  •  ইনডোর প্লে এরিয়া
  • ওয়াটার বোর্ড 
  •  দেশি এবং চায়নিজ থাই ফুড
  •  সুইমিংপুল
  •  শিশুপার্ক 
  • শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত 

মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে অবস্থিত এই প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট এন্ড এগ্রো লিমিটেড

nikli

নিকলী হাওরের চেয়ারম্যান গেস্টহাউজ 

নিকলীতে ভালো ভাবে থাকার জন্য রয়েছে একটি গেস্ট হাউজ, যা চেয়ারম্যান গেস্ট হাউজ নামে পরিচিত। অত্যাধুনিক মানের এই গেস্ট হাউজটি অনেকটা সেবা প্রদান করে থাকে, যেমন: 

  • এসি রুম 
  • নন এসি রুম 
  •  সিসি ক্যামেরায় আওতাদিন নিরাপত্তার ব্যবস্থা 
  • সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ ব্যবস্থা 
  • গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা 
  •  মনোরম পরিবেশে বারান্দা সহ থাকার সুব্যবস্থা 

নিকলী কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মোড়ে এই গেস্ট হাউজটি। যোগাযোগ করার জন্য নাম্বার:-

০১৯৫৬-০৭১৫৬৩

০১৩০৮-৫১০৪১১

নিকলী হাওরের শাহাজাহান গেস্ট হাউজ

নিকলী হাওরের অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভ্রমণে গিয়ে থাকার জন্য রয়েছে আরও একটি সুব্যবস্থা শাহাজাহান গেস্ট হাউজে। শাহাজাহান গেস্টহাউজটি যা যা সেবা প্রদান করে থাকে :-

  • সকালের ব্রেকফাস্ট 
  •  নিরাপত্তার ব্যবস্থা 
  •  ইন্টারনেটের ওয়াইফাই ব্যবস্থা 
  •  গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা 
  • সার্বক্ষণিক বিদ্যুতের সুব্যবস্থা 
  • এসি রুম / নন এসি রুম

নিকলী, পুরান বাজার, থানা সংলগ্নে রয়েছে এই আবাসিক শাহাজাহান গেস্ট হাউজটি। যোগাযোগ করার জন্য :- ০১৭১১-৫৭৬৯৬১ , ০১৪০৭-৭৪৫৮৯২

নিকলির আরো কিছু দর্শনীয় স্থান

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের দেশ বাংলাদেশ, এখানে অনেক ধরনের চোখ ধাঁধানো জায়গা/জমি রয়েছে। এর মধ্যে নিকলী হাওর,মিঠামইন হাওর অন্যতম। কিশোরগঞ্জে অবস্থিত এই সুন্দর জায়গাগুলো। হাওর এলাকার জন্য কিশোরগঞ্জ জেলা বিখ্যাত। এর অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি আসে এই হাওর থেকে। শুধু অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে নয়, এই হাওর এলাকা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যও বেশ জনপ্রিয়নিকলীর পাশেই আপনি সহজেই রিকশা বা মোটরবাইকে করে ঘুরে আসতে পারেন গুরাই শাহী জামে মসজিদে। 

এবং নিকলী উপজেলা অফিসের সামনে থেকে বাঁধটি শুরু হয়েছে তাই পায়ে হেঁটে এর সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন নেকলী বেড়ি বাঁধের। আরো রয়েছে নিকলী উপজেলা থেকে ট্রলার ও মোটরবাইকে যাওয়া যায় এমন একটি পবিত্র ও সৌন্দর্য পরিপূর্ণ স্থান পাহাড় খান মাজার। 

প্রাচীনতম একটি আখড়া গুরাই  আখড়া। এই আখড়াটি কিশোরগঞ্জ জেলার নিকলী উপজেলার গুরাই ইউনিয়নে অবস্থিত রয়েছে।  শুষ্ক মৌসুমে রিকশা, মোটরসাইকেল, সিএনজিতে যাওয়া যায় কিন্তু বর্ষাকালে যেতে হয় নৌকা বা ট্রলারের মাধ্যমে। 

ভ্রমণের সময় প্রয়োজনীয় সতর্কতা

ক্যাম্পিং করার সময় নিকলী বাজারের কাছাকাছি সবসময় থাকার চেষ্টা করবেন। আপনার দলে যদি ১৫ জন বা তার বেশি লোকের সাথে যথেষ্ট বড় হয়, তাহলে আপনাকে স্থানীয় থানায় ওসির কাছে রিপোর্ট করে রাখতে পারেন। ইজিবাইক, সিএনজি, নৌকা, ট্রলারের মতো যানবাহনে ওঠার আগে অবশ্যই অগ্রিম দাম দর করে রাখবেন। যাতে সঠিক জায়গায় পৌঁছানোর পরে কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে না হয়। 

স্থানীয় চালকদের সাথে দুর্ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন। আপনি যদি নৌকায় রাত কাটাতে চান তবে যতটা সম্ভব তীরের কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করবেন। স্থানীয় কেউ আপনার পাশে থাকলে সবচেয়ে ভালো হয়। প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে গিয়ে যেন কোন সমস্যার সম্মুখীন না হতে হয়, সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন। একা একা নৌকা নিয়ে ভ্রমণে না যাওয়াই ভালো হবে, দলবেঁধে একসাথে কয়েকজন মিলে নৌকায় ভ্রমন করবেন। 

পরিশেষে,

নিকলী হাওর এবং অষ্টগ্রাম-মিঠামিন রোড একদিনের সফরের পরিকল্পনা করার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা হতে পারে। তবে রাতের বেলা হাওর পরিদর্শনে সতর্ক থাকতে হবে। বড় দল নিয়ে সেখানে গেলে সবচেয়ে ভালো হবে। নৌকায় ভ্রমণের সময় হাওরের পানিতে ময়লা আবর্জনা ফেলে পরিবেশ ধ্বংস করা থেকে বিরত থাকতে হবে

নিকলী হাওর শান্তভাবে ঘোরাফেরা করার জন্য একটি সুন্দর জলাভূমি। নিকলী হাওরের প্রশান্তি এবং প্রশান্তি এই মনোমুগ্ধকর ভ্রমণের মূল উপায়,জলাভূমির চারপাশে নৌকায় চটিরচর জলাভূমি ঘুরে বেড়াতে পাবেন। আপনার শরীর এবং মন থেকে সমস্ত ক্লান্তি মুছে ফেলার জন্য একটি দুর্দান্ত সফর হবে এই কিশোরগঞ্জে। 

সংরক্ষিত গাড়ি এবং নৌকা সুবিধাজনক ভ্রমণের জন্য পুরো সফর আপনার খুবই আনন্দময় এবং শান্তিপূর্ণ হয়ে উঠবে। কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওর সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে অনুগ্রহ করে নির্দ্বিধায় আমাদের জানাতে পারেন। আমরা সর্বক্ষণই উত্তর দিতে প্রস্তুত। ভ্রমণ যাত্রা অবশ্যই শুভ হোক। নিরাপদে ভ্রমন করুন, ধন্যবাদ। 



 

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents