Dreamy Media BD

অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট করার নিয়ম

অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট

অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট করার নিয়ম

বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা গ্রহণের টিন (TIN) সার্টিফিকেট থাকা বাধ্যতামূলক।রাষ্ট্রের কোন নাগরিক আয়কর জমাদানের যোগ্য হয়েছেন কিনা, তা জানার জন্য ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করতে হয়। ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করতেও টিন সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন হয়। তাই আজকের আমাদের এই লেখায় আমরা দেখব, অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট করার নিয়ম

টিন (TIN) সার্টিফিকেট কি? 

টিন (TIN) হলো, ট্যাক্সপেয়ার আইডেনটিফিকেশন নম্বর।   যাকে সংক্ষেপে টিন বলে , এই টিন নম্বরসহ একজন আয়করযোগ্য নাগরিকের কর অঞ্চল  ও যাবতীয় নথিকে একত্রে টিন সার্টিফিকেট বলা হয়। টিন নম্বর ১২ সংখ্যার হয়ে থাকে, একে করদাতাদের পরিচয়পত্র হিসাবে গণ্য করা হয়, যার প্রথম তিনটি সংখ্যা করদাতার অঞ্চল , মাঝের তিন সংখ্যা করদাতার মর্যাদা ও সর্বসের চার সংখ্যা দ্বারা করদাতার পরিচিতি নির্দেশ করে।  

টিন সার্টিফিকেট কি কাজে লাগে?

যেসকল কাজে  টিন সার্টিফিকেট প্রয়োজন হয় , তাদের মধ্যে অন্যতম:

  • গাড়ির মালিকানা পেতে
  • আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে
  • ব্যবসায়িক লাইসেন্স পেতে
  • আমদানি রফতানির অনুমতি পেতে
  • ব্যাংকে ২ লক্ষের বেশি টাকা লেনদেন করতে
  • চিকিৎসা , আইন , কনসাল্টেন্সি ও ইত্যাদি বিশেষ পেসার চর্চা করতে
  • নির্বাচনে প্রার্থী হতে
  • ব্যাংকের ক্রেডিড কার্ড নেবার সময়
  • সিটি কর্পোরেশনের এলাকায় জমি ক্রয় বিক্রয়ে
  • সঞ্চয়পত্র কিনতে
  • ফ্রিল্যান্সিং এ টাকা আনতে
  • শেয়ার বাজারে , শেয়ার কিনতে

বেশিরভাগ আর্থিক কাজে টিন সার্টিফিকেট  এর প্রয়োজন হয়।  

টিন সার্টিফিকেট করার জন্য কি কি কাগজপত্র লাগে?

ব্যাক্তির তিন করতে শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র থাকলেই হবে।  কিন্ত কোন প্রতিষ্ঠানের করতে গেলে:

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • ইনকর্পোরেশন সার্টিফিকেট
  • ম্যামোর‍্যান্ডাম অফ আর্টিকেল (এমওএ)
  • আর্টিকেল অফ অ্যাসোসিয়েশন (এওএ)

এই কাগজপত্র গুলি সাথে রাখতে হবে।  

টিন সার্টিফিকেট রেজিস্ট্রেশন

অনলাইনে খুব সহজে টিন সার্টিফিকেট পাওয়া যায় , তার বিস্তারিত স্বচিত্র ধাপে ধাপে প্রক্রিয়া নিচে বর্ণনা করা হলো।  

প্রথম ধাপ: রাজস্বের ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন    

অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট  

যে কোন ওয়েব ব্রাউজার থেকে (sucure.incometax) এই লিংকে প্রবেশ করলে , ছবির মতো একটা ওয়েবসাইট হোমপেজ আসবে।  

এখান থেকে প্রথমে আয়কর  বা রাজস্বের ওয়েবসাইট এ ইউজার একাউন্ট খুলতে হবে । 

তাই, রেজিস্টার বাটনে ক্লিক করতে হবে । 

ক্লিকের পর , একাউন্ট করার জন্য একটা অনলাইন ফর্ম আসবে।  ফরমটি প্রয়োজনীয় তথ্য দ্বারা পূরণ করতে হবে।  

প্রথমে, স্পেস ছাড়া ছোটহাতের অক্ষর দিয়ে কমপক্ষে ৮ অক্ষরের একটা আইডি বানাতে হবে।  তারপর কপক্ষে  ৪ অক্ষরের একটা পাসওয়ার্ড বানাতে হবে।  

এর পরের ঘরে , একটা নিরাপত্তা প্রসার উত্তর দিতে হবে , আপনি কখনো পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে , এর সাহায্য আবার পাসওয়ার্ড রিসেট করতে পারবেন।  তারপর দেশ ও মোবাইল নম্বর , মেইল (যদি থাকে) দিতে হবে।

এরপর সবশেষ ক্যাপচা সল্ভ করে , রেজিস্টার ক্লিক করতে হবে।  

তাহলে কিছুক্ষনের মধ্যে আপনার মোবাইল নম্বরে একটা কোড যাবে , কোডটি ফর্মের নির্দিষ্ট জায়গায় দিলে , জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এর ওয়েবসাইটে আপনার একাউন্ট খুলে যাবে।  

দ্বিতীয় ধাপ: টিন সার্টিফিকেটের ফর্ম পূরন  

এবার আপনার মূল কাজ শুরু হবে।  আগের ধাপে তৈরী করা ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দ্বারা https://secure.incometax.gov.bd/Registration/Login   এই লিংকে প্রবেশ করতে হবে।  

আপনার দেওয়া তথ্য ঠিক থাকলে , একটা পেজ আসবে , যেখানে মেনুতে  TIN Applicatipon এ ক্লিক করে মূল ফর্মে যেতে হবে।

এই ফর্মে আপনার অবস্থা , থিনাকে , রেজিস্ট্রেশনের ধরন, আয়ের প্রধান উৎস ও ঠিকানা ইত্যাদি প্রয়োজনীয় প্রাথমিক তথ্য দিতে হবে।  

তারপর নিচের ” গো টু নেক্সট”  বাটনে ক্লিক করতে হবে।  

এই পর্যায়ে আপনাকে কিছু ব্যাক্তিগত তথ্য প্রদান করতে হবে ,

  • আপনার নাম,
  • লিঙ্গ,
  • এনআইডি কার্ড নম্বর,
  • জন্ম তারিখ,
  • পিতা-মাতার নাম,
  • স্বামী/স্ত্রীর নাম,
  • মোবাইল নাম্বার,
  • ইমেল এবং
  • বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা

ইত্যাদি তথ্য দিতে হবে।  তথ্য দেবার সময় সতর্কতার সাথে দিবেন।  প্রয়োজনে বার বার যাচাই করুন।  

তারপর আবার, ” গো টু নেক্সট”  বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এতক্ষণে যে তথ্যগুলি প্রধান করেছেন তা একটি পেজে একসাথে দেখতে পারবেন।  সবগুলি তথ্য ঠিক থাকলে “সাবমিট” বাটনে ক্লিক করুন।  তাহলে আপনার ই-টিন সার্টিফিকেট তৈরির প্রক্রিয়াটি শেষ হবে। 

টিন সার্টিফিকেট ডাউনলোড

উপরের সব প্রক্রিয়া ভালোভাবে শেষ হলে , লগইন অবস্থায় “টিন সার্টিফিকেট দেখুন” বাটনে ক্লিক করুন।  তাহলে আপনার টিন সার্টিফিকেট  এর একটা প্রিভিউ দেখতে পারবেন।  এখন থেকে পিডিএফ ফাইল আকারে টিন সার্টিফিকেট  ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। 

টিন সার্টিফিকেট যাচাই করার নিয়ম

সর্বপ্রথম আয়কর বিভাগের ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করে , তারপর আপনার ইউজার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে।  

লগইন ঠিকভাবে হলে একটা ড্যাশবোর্ড পাবেন।  এখানে ড্যাশবোর্ড মেনুবার থেকে ” View TIN Certificate ” এই মেনুতে যেতে হবে।  

তাহলে আপনার TIN সার্টিফিকেট দেখতে পারবেন।  যেখানে আপনার বিস্তারিত তথ্য পিডিএফ আকারে দেখতে পারবেন। 

টিন সার্টিফিকেট হারিয়ে গেলে কিভাবে পাওয়া যায়? 

কোনো কারণে , আপনার হারিয়ে গেলে , প্রথমে সাহায্যের জন্য এনবিআর হেল্পলাইনা যোগাযোগ করতে হবে।  এনবিআর হেল্পলাইন হচ্ছে- ০৯৬১১৭৭৭১১১ বা ৩৩৩। এছাড়াও আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র সহকারে আপনার ট্যাক্স অফিসে যোগাযোগ করতে পারেন। 

ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে

কোনোভাবে রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইটের আপনার অ্যাকাউন্টের আইডি/ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে যা করবেন:

প্রথমে, https://secure.incometax.gov.bd/TINHome  ওয়েবসাইটে এ প্রবেশ করে  উপরের মেনুবার থেকে ফরগট পাসওয়ার্ড এ যেতে হবে।  প্রথমে সেখান থেকে , ফরগেট মাই ইউজার বাছাই করে , মোবাইল নম্বর দিতে হবে।  আপনার মোবাইলে চার ডিজিটের একটা কোড আসবে , সেটা দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে।  তাহলে আপনার আগের ইউজার নাম আসবে।

এরপর আবার ফরগট পাসওয়ার্ড এ যেতে হবে , তারপর এখানে আপনার ইউজারনেম দিয়ে ক্যাপচা পূরণ করে নেক্সট এ যেতে হবে।  আপনার ফোন ৪ ডিজিটের একটা কোড আসবে।  সেটা দিয়ে “রিকভার মাই অ্যাকাউন্ট” বাটনে ক্লিক করতে হবে।  তাহলে নতুন পাসওয়ার্ড সেটের একটা অপশন পাবেন , সেখান থেকে কমপক্ষে ৪ ডিজিটের একটা নতুন পাসওয়ার্ড দিতে হবে।  

টিন সার্টিফিকেট কাদের জন্য প্রয়োজনীয়

রাষ্ট্রের যে সকল নাগরিকের আয়কর বা ট্যাক্স রিটার্ন দেওয়ার সামর্থ আছে , তাদের জন্য প্রয়োজনীয়।  সারাবিশ্বে মতো বাংলাদেশেও আয়কর মুক্ত আয়ের একটা সীমা আছে , তার নিচে যায় থাকলে কোন ট্যাক্স দিতে হয় না , শুধুমাত্র ট্যাক্স রিটার্ন করলেই হবে। একটি দেশের সরকারের রাষ্ট্র পরিচালনার প্রধান আয়ের খাত হলো ইনকাম ট্যাক্স। 

 করমুক্ত আয়ের সীমা কত? 

Income-tax Ordinance, 1984 (Ordinance No. XXXVI of 1984) 47 section 2(46) এ সংজ্ঞায়িত ব্যক্তিগণের (person) মধ্যে  মােট আয়ের উপর আয়করের হার নিম্নরূপ:

কিছু মানুষের ক্ষেত্রে আয়কর সীমা কিছুটা চার দেওয়া হয়েছে:

  • তৃতীয় লিঙ্গের করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা ৩,৫০,০০০/- টাকা
  • মহিলা করদাতা এবং ৬৫ বৎসর বা তদূর্ধ্ব বয়সের করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা ৩,৫০,০০০/- টাকা
  • প্রতিবন্ধী ব্যক্তি করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা ৪,৫০,০০০/- টাকা
  • গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযােদ্ধা করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা ৪,৭৫,০০০/- টাকা

আয়কর যোগ্য ব্যাক্তিদের সর্বনিম্ন আয়কর, ৫% এবং সর্বোচ্চ আয়কর ২৫%

টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার নিয়ম

জাতীয় রাজস্ববোর্ডের অধ্যাদেশে টিন সার্টিফিকেট বাতিলের কোন নিয়ম দেওয়া নাই।  তবে , প্রয়োজনে আপনি নিচের পন্থা অবলম্বন করতে পারেন।

আবেদনের আগে , কমপক্ষে তিন বছর শুন্য রিটার্ন থাকতে হবে।   

আপনি যে কর অঞ্চলের অধিবাসী , সেই কর অঞ্চলের উপকর কমিশনার বরাবর আপনার টিন সার্টিফিকেট বাতিলের জন্য একটা আবেদন জমা দিতে হবে।  

উপকর কমিশনার আপনার আবেদনে সন্তুষ্ট হলে , আপনার ফাইলটি নথীস্থ করে রাখবে।  পরবর্তীতে আপনি আবার কর প্রদানের যোগ্য হলে , ফাইলটি সচল করতে পারবেন।  

অনলাইনে টিন সার্টিফিকেট খুবই সহজ ও ঝামেলা মুক্ত প্রক্রিয়া।  আপনার  টিন সার্টিফিকেট থাকলেই যে আয়কর দিতে হবে এমন কোন নিয়ম নেই।  আর আপনি যদি আয়কর রিটার্ন দেবার মতো সামর্থবান হন , তাহলে নিশ্চই তা দেওয়া উচিত।  রাষ্ট্রের নাগরিক হিসাবে আয়কর দেওয়া আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।  

Also Read: পাসপোর্ট করার নিয়ম

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents