Dreamy Media BD

থাইরয়েড রোগ কি লক্ষণ ও প্রতিকার

থাইরয়েড

থাইরয়েড সমস্যাগুলির পেছনে থাকে বিভিন্ন ধরনের রোগ ব্যাধি যার ফলে গ্রন্থিটি খুব কম থাইরয়েড হরমোন অথবা অনেক বেশি থাইরয়েড হরমোন তৈরি করে থাকে। থাইরয়েড রোগ মেজাজ, শক্তি স্তর, বিপাক, হৃদস্পন্দন, হাড়ের স্বাস্থ্য ,গর্ভাবস্থা এবং অন্যান্য শরীরের বিভিন্ন কার্যাবলী কে প্রভাবিত করে থাকে। এই আর্টিকেলের মধ্যে থাইরয়েড রোগ সম্পর্কিত সকল ধরনের তথ্য তুলে ধরা হলো আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

থাইরয়েড কি এবং এটি শরীরে কি কাজ করে থাকে?

থাইরয়েড একটি ছোট প্রজাতির আকারে গ্রন্থি যা গলার মাঝখানে অর্থাৎ ভয়েস বাক্সের নিচে এবং শ্বাসনালীর চারপাশে আবৃত। থাইরয়েড মূলত একটি অন্তক্ষরা গ্রন্থি। থাইরয়েড গ্রন্থি হরমোন উৎপাদন করার মাধ্যমে দেহের প্রায় সকল বিপাকীয় প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে থাকে।

থাইরয়েড হরমোন যে সকল বিপাকীয় প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে সেগুলো নিচে তুলে ধরা হলো:

*হৃদস্পন্দনের হার

*শরীরের ওজন

*মৌল বিপাকীয় হার

*দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রা

*শরীরের তাপমাত্রা

*পেশির বল ইত্যাদি।

থাইরয়েড রোগ কি?

থাইরয়েড রোগ হল একটি চিকিৎসার অবস্থার জন্য একটি সাধারণ যা থাইরয়েড গ্রন্থিকে পর্যাপ্ত পরিমাণে হরমোন তৈরি করা থেকে বিরত রাখে বা বাধা দেয়। আপনার থাইরয়েড সাধারণত আপনার শরীরে হরমোন হরমোন তৈরি করে থাকে যা আপনাকে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে থাকে।

থাইরয়েড গ্রন্থিতে বেশি পরিমাণে থাইরয়েড উৎপাদন হলে শারীরিক বিপাকীয় প্রক্রিয়া প্রভাবিত হয়ে থাকে। এমন অবস্থায় শরীর খুব তাড়াতাড়ি শক্তি ব্যবহার করে। একে সাধারণত  হাইপারথাইরয়েডিজম বলে।

 খুব তাড়াতাড়ি শক্তি ব্যবহার করার ফলে হাইপারথাইরয়েডিজমে শরীর ক্লান্ত অনুভব হয়। এছাড়াও হৃদ স্পন্দনের হার বেড়ে যায়, শরীর দ্রুত ক্লান্ত হয়ে যায়, শারীরিক ওজন কমে যায়, নার্ভাস হয়ে পড়া ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দেয়।

অন্যদিকে যখন থাইরয়েড গ্রন্থি কম হরমোন তৈরি করে অর্থাৎ হাইপোথাইরয়েডিজম, তখন শরীরে শ্রান্তি আসে, শারীরিক ওজন বেড়ে যায়, ঠান্ডা আবহাওয়া সহ্য হয় না, ডিপ্রেশন, ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়ার মতো আরো অনেক লক্ষণ ও উপসর্গ দেখা দেয়।

এই দুটি প্রধান ব্যাধি বিভিন্ন অবস্থার কারণে হতে পারে। এগুলো আপনার পারিবারিক উত্তরাধিকার সূত্রের মাধ্যমে প্রাপ্ত হয়ে থাকে।

থাইরয়েড রোগের প্রকারভেদ

থাইরয়েড রোগ মূলত পাঁচ প্রকার। নিচে এগুলো তুলে ধরা হলো:

হাইপোথাইরয়েডিজম:

হাইপোথাইরয়েডিজম আপনাকে গ্রেভস রোগের দিকে পরিচালিত করতে পারে এবং যার অনেকগুলো লক্ষণ রয়েছে। লক্ষণগুলো হল বেশি বেশি ঘামা, অনিয়মিত হৃদ স্পন্দন, ওজন কমে যাওয়া, প্রসারিত চোখ এবং বিভিন্ন রকম নার্ভাসনেস।

হাশিমোটো-এর থাইরয়েডাইটিস:

হাশিমোটো-এর থাইরয়েডাইটিস মূলত একটি অটোইমিউন ডিসঅর্ডার, থাইরয়েড গ্রন্থির প্রদাহ। এটি সাধারণত গলগন্ড (একটি বর্ধিত থাইরয়েড গ্রন্থির কারণে গলা ফোলা) এবং অন্যান্য নানান উপসর্গের কারণ হতে পারে।

থাইরয়েড রোগ

থাইরয়েড টিউমার:

থাইরয়েড নডিউলস্ এবং অ্যাডেনোমাস, ছোট, ক্যান্সারহীন বৃদ্ধি, কোষের স্তরে শুরু যা থাইরয়েড গ্রন্থির অভ্যন্তরীণ পৃষ্ঠকে রেখে দেয়। অ্যাডোনোম সাধারণত নিজেই থাইরয়েড হরমোন নিঃসরণ করতে পারে এবং হাইপারথাইরয়েডিজম হতে পারে। থাইরয়েড অ্যাডেনোমা চিকিৎসার মধ্যে অতিরিক্ত সক্রিয় নডিউল অপসারণের জন্য অস্ত্রপচার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

থাইরয়েড ক্যান্সার:

যাদের মাথা ঘাড় বা বুকে বিকিরণ অথবা রেডিয়েশন দেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে সাধারণত থাইরয়েড ক্যান্সার বেশি দেখা দেয়। থাইরয়েড রোগ যে শুধু এই সকল সমস্যা থাকলে দেখা দেয় তা নয় যাদের সমস্যা নেই তাদেরও এই রোগ দেখা দিতে পারে। থাইরয়েড ক্যান্সারকে প্রধানত চারটি ভাগে ভাগ করা যায়। যথা:প্যাপিলারি থাইরয়েড ক্যান্সার, ফলিকুলার থাইরয়েড ক্যান্সার, অ্যানাপ্লাস্টিক থাইরয়েড ক্যান্সার এবং মেডুলারি ক্যান্সার। বর্তমানে বেশিরভাগ থাইরয়েড ক্যান্সারের সফলভাবে চিকিৎসা করা সম্ভব।

থাইরয়েড রোগের কারণ:

থাইরয়েড রোগের প্রধান দুটি ধরন হচ্ছে হাইপোথাইরয়েডিজম এবং হাইপারথাইরয়েডিজম। এই দুটি অবস্থায় বিভিন্ন রোগের কারণে হতে পারে এবং এগুলো থাইরয়েড গ্রন্থির কাজকে প্রভাবিত করে।

হাইপোথাইরয়েডিজম হতে পারে এমন শর্তগুলির মধ্যে রয়েছে:

থাইরয়েডাইটিস:

এ অবস্থা মূলত হলো থাইরয়েড গ্রন্থির প্রদাহ বা ফোলা।থাইরয়েডাইটিস  আপনার থাইরয়েড উৎপাদন হরমোনের পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারে।

প্রসবোত্তর থাইরয়েডাইটিস:

এই রোগটি প্রসব এবং এর পরবর্তী সময়ে ৫ থেকে ৯ পার্সেন্ট মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়। এটি সাধারণত একটি অস্থায়ী অবস্থা।

আয়োডিনের অভাব:

থাইরয়েড গ্রন্থি হরমোন উৎপাদন করতে আয়োডিন ব্যবহার করা হয়। আয়োডিনের অভাব একটি সমস্যা যা বিশ্বজুড়ে কয়েক মিলিয়ন মানুষকে আক্রান্ত করেছে।

একটি অকার্যকর থাইরয়েড গ্রন্থি:

কখনো কখনো দেখা যায় কিছু থাইরয়েড গ্রন্থি জন্ম থেকেই সঠিকভাবে কাজ করে না। এটি প্রায় ৪০০০ নবজাতক শিশুর মধ্যে ১ জনকে আক্রান্ত করে বা প্রভাবিত করে। যদি ভালোভাবে চিকিৎসা করা না হয় তাহলে শিশুটি শারীরিক এবং মানসিক উভয়ের নানারকম সমস্যা দেখা দিতে পারে। সমস্ত নবজাতক শিশুকে থাইরয়েডের কার্যকারিতা পরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে একটি স্ক্রিনিং রক্ত পরীক্ষা করা হয়ে থাকে।

গ্ৰেভস ডিজিজ:

এ অবস্থায় থাইরয়েড গ্রন্থি অতিরিক্ত পরিমাণ সক্রিয় হয়ে থাকে এবং খুব বেশি থাইরয়েড হরমোন তৈরি করে। এই সমস্যাটাকে বর্ধিত থাইরয়েড গ্রন্থি সমস্যা বলা হয়ে থাকে।

নোডুলস:

হাইপারথাইরয়েডিজম, থাইরয়েডের ভিতরে অত্যাধিক কার্যকরী নোডুলসের কারণ হতে পারে। একটি একক নোডুলস কে স্বায়ত্তশাসিত কার্যকরী থাইরয়েড নোডুলস ও বলা হয়ে থাকে। একের অধিক নোডুলসহ একটি গ্রন্থিকে নোডুলার গয়টার বলা হয়।

থাইরয়েডাইটিস:

এই ব্যধিটি বেদনাদায়ক হতে পারে অথবা বেদানা অনুভব নাও হতে পারে। থাইরয়েডাইটিসে, থাইরয়েড সঞ্চিত হরমোন নিঃসরণ করে। এই সমস্যাটি কয়েক সপ্তাহ বা কয়েক মাস ধরে চলতে পারে।

অত্যাধিক আয়োডিন:

আপনার শরীরে যখন খুব বেশি আয়োডিন, থাইরয়েড হরমোন তৈরির জন্য ব্যবহৃত খনিজ থাকে তখন থাইরয়েড গ্রন্থি তার প্রয়োজনের তুলনায় বেশি হরমোন তৈরি করে থাকে। অত্যাধিক আয়োডিন মূলত কিছু ঔষধ এবং কাশির সিরাপে পাওয়া যায়।

Thyroid

থাইরয়েড রোগের লক্ষণ:

 একজন থাইরয়েড রোগগ্রস্ত ব্যক্তির বিভিন্ন প্রকার লক্ষণ দেখা দিতে পারে। দুর্ভাগ্যবশত থাইরয়েড রোগের অবস্থান লক্ষণ গুলি অন্যান্য চিকিৎসাধীন এবং জীবনের পর্যায়ের লক্ষণ গুলো সাথে খুব মিল রয়েছে। তাই লক্ষণ গুলি থাইরয়েড সমস্যা বা অন্য কিছুর সাথে সম্পর্কিত কিনা তা নির্ণয় করা খুব কঠিন হয়ে পড়ে।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে থাইরয়েড রোগের লক্ষণগুলোকে দুটি ভাগে ভাগ করা যেতে পারে-খুব বেশি থাইরয়েড হরমোন হাইপারথাইরয়েডিজম এবং খুব কম থাইরয়েড হরমোন হাইপোথাইরয়েডিজম।

খুব বেশি থাইরয়েড হরমোনের লক্ষণ গুলি হল:

*সব সময় উদ্বিগ্ন এবং বিরক্তি অনুভব করা।

*ঘুমের সমস্যা হওয়া।

*সাধারণভাবে ওজন কমে যাওয়া।

*গলগন্ড (বৃদ্ধি পাওয়া থাইরয়েড গ্রন্থির একটি অংশ ফুলে যাওয়া)

*মহিলাদের অনিয়মিত মাসিকের অভিজ্ঞতা বা মাসিক চক্র বন্ধ হয়ে যাওয়া।

*তাপের প্রতি সংবেদনশীল বোধ হওয়া।

*দৃষ্টি শক্তিতে সমস্যা হওয়া বা চোখ জ্বালা।

খুব কম থাইরয়েড হরমোনের লক্ষণ গুলি হল:

*শরীর ক্লান্ত হয়ে যাওয়া।

*শরীরের ওজন বেড়ে যাওয়া।

*বিস্মৃতি অনুভব হওয়া।

*মহিলাদের ক্ষেত্রে ঘন ঘন এবং অধিক পরিমাণে মাসিক হওয়া।

*শুষ্ক এবং মোটা চুল।

*কণ্ঠস্বর কর্কশ হয়ে যাওয়া।

*ঠান্ডা তাপমাত্রায় অসহিষ্ণুতা অনুভব করা।

কাদের থাইরয়েড রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি

পুরুষ, মহিলা, শিশু, কিশোর, বয়স্ক যেকোনো ধরনের ব্যক্তির থাইরয়েড রোগ হতে পারে। থাইরয়েড রোগ আপনার জন্মের সময় হতে পারে (হাইপোথাইরয়েডিজম) আবার এ রোগ আপনার বৃদ্ধির সাথে সাথে বিকাশ লাভ করতে পারে (প্রায়শই মহিলাদের মেনোপজের পরে)।

থাইরয়েড রোগ একটি খুবই সাধারণ রোগ। ইউনাইটেড স্টেটের আনুমানিক বিশ মিলিয়ন লোকের থাইরয়েড সংক্রান্ত সমস্যা রয়েছে।

বিভিন্ন রিসার্চ থেকে জানা গেছে যে, সাধারণত মহিলারা পুরুষদের তুলনায় থাইরয়েড রোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। এবং মহিলাদের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা পাঁচ থেকে আট গুণ বেশি।

যে সকল কারণ গুলি থাকলে থাইরয়েড রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি থাকে:

*কারো যদি থাইরয়েড রোগের পারিবারিক ইতিহাস থাকে অর্থাৎ রোগীটির উত্তরাধিকার সূত্রে এই রোগ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

* রক্তশূন্যতা, টাইপ ওয়ান ডায়াবেটিস, প্রাথমিক অ্যাড্রেনাল অপ্রতুলতা, লুপাস, আর্থ্রাইটিস,সজোগ্রেনের সিন্ড্রোম এবং টার্নার সিনড্রোম ইত্যাদি এগুলোর মধ্যে যেকোনো একটি মেডিকেল অবস্থা আছে  যার।

*বেশি আয়োডিন আছে এমন ঔষধ সেবন করলে থাইরয়েড রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

*বয়স ৬০ বছরের বেশি হলে অথবা ৬০ ঊর্ধ্ব মহিলাদের ক্ষেত্রে এর রোগ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

*অতীতের থাইরয়েড অবস্থা বা ক্যান্সারের জন্য চিকিৎসা করা হয়েছে এমন ব্যক্তির এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

থাইরয়েড রোগের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা

থাইরয়েড রোগের চিকিৎসা প্রায়ই সফল হয়ে থাকে। থাইরয়েড রোগের চিকিৎসায় বিভিন্ন অ্যান্টি-থাইরয়েড ঔষধ,রেডিওঅ্যাক্টিভ আয়োডিন প্রক্রিয়ার ব্যবহার এবং অস্ত্রোপচার বা সার্জারি করা হয়ে থাকে।

থাইরয়েড রোগের কি কি উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত?

থাইরয়েড রোগের যে সকল উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত তা নিচে তুলে ধরা হলো:

*গলার ভয়েস বক্সের দুপাশে ফোলা পিন্ডের মতো কিছু অনুভব করলে।

*সব সময় হতাশা, নার্ভাস, ডিপ্রেশন ইত্যাদি অনুভব করলে এবং অযথা মেজাজ পরিবর্তন হলে।

*দীর্ঘ সময় ধরে গরম অথবা শীত অনুভব করলে।

*খুব বেশি শ্রান্তি অনুভব করলে।

*হঠাৎ করে ওজন কমে গেলে অথবা বেড়ে গেলে।

থাইরয়েড ব্যাধি প্রতিরোধের কিছু সহজ টিপস

প্রক্রিয়াজাত খাদ্য এড়িয়ে চলুন:

প্রক্রিয়াজাত খাবারে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক থাইরয়েড হরমোন তৈরিতে প্রভাবিত করতে পারে। এজন্য যেকোনো ধরনের প্রক্রিয়াজাত খাদ্য এড়িয়ে চলুন। বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাত খাদ্যে খাবারের লবণ, চিনি এবং তেলের পরিমাণ অনেক বেশি থাকে যা খুব সহজেই আপনার ওজন বাড়াতে পারে।

ক্রুসীফেরাস সব্জি:

থাইরয়েড রোগ থাকলে ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রকোলি এবং পালং শাক ইত্যাদি একেবারেই খাওয়া যাবে না। এই সকল শাকসবজিতে গয়ট্রোজেন থাকে যা থাইরয়েড গ্রন্থির আয়োডিন শোষণে বাধা দেয় এবং হাইপারথাইরয়েডিজমকে আরো অনেক গুন বাড়িয়ে দেয়।

সোয়া পণ্য এড়িয়ে চলুন:

সোয়া খাওয়া সীমিত করুন এটি আপনার থাইরয়েড হরমোন তৈরিতে প্রভাবিত করে। এজন্য সয়াবিন, সয়ার দুধ, টফুর মত খাবার মেপে খাওয়াই ভালো।

ধূমপান বন্ধ করুন:

ধূমপান করার সময় ধূমপান থেকে নির্গত টক্সিন থাইরয়েড গ্রন্থিকে বেশি সংবেদনশীল করে তোলে যা পরে থাইরয়েড রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

মানসিক চাপ কমান:

মানসিক চাপ থাইরয়েড রোগ সহ অন্য আরও অনেক ব্যাধির অন্যতম প্রধান কারণ। এজন্য এই সকল রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সক্রিয় হোন, ধ্যান করুন, ইয়োগা করুন, নিয়মিত ব্যায়াম করুন এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে থাইরয়েডের সমাধান

শরীরের প্রতিটি উপাদানের নির্দিষ্ট একটি মাত্রা থাকা প্রয়োজন। মানুষের শরীরের জন্যও থাইরয়েড হরমোন একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় থাকা দরকার। প্রয়োজনের তুলনায় কম বা বেশি হরমোন উৎপাদিত হলে শরীরের উপর বিভিন্ন রকম বিরূপ প্রভাব দেখা দিতে পারে।

কিছু খাদ্যাভাস পরিবর্তন এবং জীবনযাত্রা ঠিক রাখার মাধ্যমে আমরা থাইরয়েডে সমস্যার সমাধান করতে পারি।

থাইরয়েডের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে এবং নিজেকে সুস্থ রাখতে কিছু ঘরোয়া উপায় নিচে তুলে ধরা হলো:

*বাইরের প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং জাঙ্কফুড খাওয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হবে। কারণ এই ধরনের খাবারে চর্বি, লবণ, কার্বোহাইড্রেট এবং বিভিন্ন ক্ষতিকারক পদার্থ বেশি পরিমাণে থাকে। এগুলো স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকারক এবং নিয়মিত এগুলো খাওয়ার ফলে শরীরে অনেক ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলতে পারে। তাই এগুলো খাওয়ার পরিবর্তে বেশি করে ঘরের খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

*অগোছালো জীবনযাত্রা পরিহার করে করতে হবে। বর্তমানে এত এত শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা হওয়ার মূল কারণ হচ্ছে অগোছালো জীবন যাপন। স্বাস্থ্য ভালো রাখতে হলে নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। শরীরের অতিরিক্ত ক্যালোরি কমাতে এবং শরীরকে সুস্থ রাখতে ব্যায়ামের কোন বিকল্প নেই।

*খাবার খাওয়ার সময় মনোযোগ দিয়ে ভালো করে চিবিয়ে খেলে তা থাইরয়েড এবং মনের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে। তাই খাওয়ার সময় কখনও তাড়াহুড়া করতে যাবেন না, সময় নিয়ে ভালোভাবে চিবিয়ে খান। শরীরে বিপাক নিয়ন্ত্রণে থাইরয়েড গ্রন্থি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে, সেজন্য সব সময় খাবার খাওয়ার সময় ভালো করে চিবিয়ে খাবার গ্রহণ করবেন।

*গবেষণা দেখা গেছে কিছু শাক-সবজি আছে যেমন ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রকোলি ইত্যাদি শাকসবজি কাঁচা অবস্থায় খাওয়া ঠিক না। এগুলো কাঁচা অবস্থায় খেলে থাইরয়েড গ্রন্থির কাজ ব্যাহত হয়। ফলে থাইরয়েড গ্রন্থির ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। এজন্য এই সকল সবজি কাঁচা অবস্থায় বা সালাদ হিসেবে না খেয়ে রান্না করে খেতে হবে।

*নারিকেল তেল গরম করে ব্যবহার না করলে তা দেহের ওজন বাড়াতে এবং দেহের বিপাকীয় ক্রিয়া বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। নারিকেল তেলে যে ফ্যাটি এসিড থাকে তা থাইরয়েড গ্রন্থির কার্যকারিতা বাড়াতে সাহায্য করে থাকে। এছাড়া শারীরিক তাপমাত্রাও ঠিক রাখতে এই তেল অনেক কার্যকরী।

*হরমোন উৎপাদনে ভারসাম্য ঠিক রাখতে অ্যাপেল সিডার ভিনেগার অনেক উপকারী। এতে করে বিপাক ক্রিয়ার উন্নতি হয়। এছাড়া এটি দেহের ফ্যাট নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং দেহ থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করতে এবং পুষ্টি শোষণে সহায়তা করে থাকে।

* আদাতে বিভিন্ন ধরনের খনিজ যেমন পটাশিয়াম ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি থাকে। এজন্য আদা থাইরয়েডের সমস্যার জন্য অনেক কার্যকর। থাইরয়েড সমস্যা দূর করার জন্য নিয়মিত আদার চা পান করতে পারেন।

*থাইরয়েড সমস্যা সমাধানে ভিটামিন বি খুবই কার্যকর ভূমিকা পালন করে। বিশেষ করে ভিটামিন বি১২ হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য অনেক উপকার। তাই যে সকল খাবারে ভিটামিন বি বেশি থাকে যেমন মাছ, মাংস, দুধ, ডিম, বাদাম এগুলো প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। যাতে করে এই সকল খাবার আপনার শরীরে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন বি সরবরাহ করতে পারে।

*ভিটামিন ডি এর অভাবে অনেক সময় থাইরয়েড সমস্যা হয়ে থাকে। একমাত্র সূর্যের আলোতেই ভিটামিন ডি প্রস্তুত করতে পারে তাই দিনে অন্তত ২০ মিনিট সূর্যের আলো পোহাবেন। এতে করে শরীরের ভিটামিন ডি প্রস্তুত সহ ভালোভাবে ক্যালসিয়াম শোষণ হবে এবং দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া শরীরে ভিটামিন ডি এর মাত্রা কম থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ভিটামিন ডি এর সাপ্লিমেন্ট দেওয়া যেতে পারে।

*আয়োডিন এবং খনিজসমৃদ্ধ খাবার থাইরয়েড এর জন্য খুবই উপকারী। তাই যে সকল খাবারে এই উপাদানগুলো বেশি থাকে যেমন দুধ, পনির, দুই ইত্যাদি বেশি বেশি করে খেতে হবে। আয়োডিন সাপ্লিমেন্টও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

পরিশেষে:

ছোট্ট একটি চিকিৎসাযোগ্য গলগন্ড রোগ থেকে সম্ভাব্য প্রাণনাশক ম্যালিগন্যান্সি পর্যন্ত থাইরয়েড ব্যাধি সকলকে প্রভাবিত করতে সক্ষম। থাইরয়েডের বেশিরভাগ সমস্যা থাইরয়েড হরমোন তৈরিতে বিচ্যুতি ঘটার কারণে হয়ে থাকে। যদিও থাইরয়েডের অস্বস্তিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থাকতে পারে কিন্তু সঠিক রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসার মাধ্যমে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই কার্যকরীভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা আপনাদের থাইরয়েড কি, এটি আমাদের শরীরে কি কি কাজ করে থাকে, থাইরয়েড রোগ কি, থাইরয়েড রোগের প্রকারভে, মহিলাদের মধ্যে থাইরয়েডের ব্যাধি, থাইরয়েড রোগের বিভিন্ন কারণ, থাইরয়েড রোগের লক্ষণ, কাদের থাইরয়েড রোগের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি থাকে, থাইরয়েড রোগের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা, কি কি উপসর্গ দেখা দিলে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত, থাইরয়েড রোগ প্রতিরোধের ঘরোয়া উপায় ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করেছি। আশা করি আপনাদের ভালো লেগেছে, ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন –

Related Post

খুশির স্ট্যাটাস

200+ স্টাইলিশ খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন

খুশির স্ট্যাটাস | হাসি নিয়ে ক্যাপশন জীবনের সুন্দর খুশির মুহূর্ত আমরা সবাই বাঁধাই করে রাখতে চাই। আর এই খুশির মুহূর্তকে ধরে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়

Read More »
❤love status bangla | ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | প্রেম ছন্দ স্ট্যাটাস❤

স্টাইলিশ ভালোবাসার ছন্দ | রোমান্টিক ছন্দ | Love Status Bangla

❤❤ভালোবাসার ছন্দ | ভালোবাসার ছন্দ রোমান্টিক | ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস❤❤ ভালোবাসা হলো এক অন্যরকম অনুভূতির নাম, যা শুধুমাত্র কাউকে ভালবাসলেই অনুভব করা যায়। আমরা বিভিন্নভাবে

Read More »
মন খারাপের স্ট্যাটাস

মন খারাপের স্ট্যাটাস, উক্তি, ছন্দ, ক্যাপশন, কিছু কথা ও লেখা

মন খারাপের স্ট্যাটাস মন খারাপ – এই কষ্টের অনুভূতি কার না হয়? সবারই কখনো না কখনো সবারই মন খারাপ হয়। জীবনের ছোটোখাটো অঘটন থেকে শুরু

Read More »
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রেমের উক্তি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বলা হয় বিশ্বকবি। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও গুনী লেখক। প্রেম চিরন্তন এবং সত্য। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মনে প্রেমের

Read More »
ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা | Breakup Status Bangla

ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা আপনি কি আপনার প্রিয়জনের সাথে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে এসেছেন? আর সেটা আপনি কোন ব্রেকআপ স্ট্যাটাস বাংলা মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনি

Read More »

Leave a Comment

Table of Contents